• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন

জাতীয় সংসদে উপস্থাপিত গণমাধ্যম আইন প্রত্যাহারের দাবি সাংবাদিক নেতাদের


প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৩, ২০২২, ৫:৩১ অপরাহ্ন / ১৬৪
জাতীয় সংসদে উপস্থাপিত গণমাধ্যম আইন প্রত্যাহারের দাবি সাংবাদিক নেতাদের

বিশেষ প্রতিনিধি,ঢাকাঃ জাতীয় সংসদে উপস্থাপিত গণমাধ্যমকর্মী (চাকুরীর শর্তাবলী) আইন ২০২২ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন সাংবাদিক নেতারা।

আজ রবিবার ( ৩মার্চ ) বেলা ১২ টায় জাতীয় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গনে জাস্টিস ফর জার্নালিস্ট আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে সাংবাদিক নেতারা এই দাবি জানিয়ে বলেছেন অন্যথায় রুটি রুজি ও আধিকার আদায়ের এই আন্দোলনে বৃহত্তর কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে।
জাস্টিস ফর জার্নালিস্টের সভাপতি কামরুল ইসলাম ভূইয়ার সভাপতিত্বে সমাবেশে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সদ্য বিদায়ী সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ বলেন, জাতীয় সংসদে উপস্থাপিত গণমাধ্যমকর্মী (চাকুরীর শর্তাবলী) আইন ২০২২ সাংবাদিকদের শ্রমদাস বানানোর যড়যন্ত্র ।
তিনি আরো বলেন, এই আইনটি গণমাধ্যমকর্মীরা কোন ভাবেই মেনে নিবেন না। এখানে সাংবাদিকদের অধিকার ভুলণ্ঠিত করা হয়েছে। সাধারণত উপস্থাপিত আইনের কয়েকটি ধারা সংশোধন করা যায় কিন্তু এই আইনের সব কটি ধারাই সাংবাদিক স্বার্থ বিরোধী এযেন সাংবাদিক সমাজের মৃত্যু সনদ। আমরা এই আইনটি প্রত্যাহার করে নতুন করে এই সাংবাদিক বান্ধব আইন প্রনয়নের দাবি জানাই।
ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সদ্য বিজয়ী সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসেন বলেন, বির্তকীত এই আইন পাশের মধ্য দিয়ে সংবাদকর্মীদের কণ্ঠ রোধ করার চেষ্ঠা চলছে। সাংবাদিক ইউনিয়ন করার অধিকার বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে। আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনের মধ্যদিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের এই প্রচেষ্ঠা বন্ধ করে দিবো।
ডিইউজের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আলম বলেন, গণমাধ্যমবান্ধব সরকারকে বিপাকে ফেলার জন্য ষরযন্ত্রকারীরা এমন আইন করার জন্য তৎপর হয়েছে। আমরা সরকার প্রধানের কাছে আহ্বান জানিয়ে বলছি অবিলম্বে এই ষড়যন্ত্রের সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার। অন্যথায় সাংবাদিক সমাজ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে দাবি আদায় করে ঘরে ফিরবে।
সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন জাস্টিস ফর জার্নালিস্টের সিনিয়র সহ সভাপতি জাহাঙ্গীর খান বাবু, ডিইউজের নবনির্বাচিত সহ সভাপতি মানিক লাল ঘোষ, কোষাধ্যক্ষ আশরাফুল আলম, আইনবিষয়ক সম্পাদক সাইফ আলী, কল্যান সম্পাদক জুুবায়ের চৌধুরী, ডিইউজের সাবেক প্রচার সম্পাদক আছাদুজ্জামান, নারী নেত্রী শাহনাজ পারভীন এলিস, হাসান কাজল প্রমুখ।
বক্তারা অবিলম্বে প্রস্তাবিত গণমাধ্যমকর্মী আইন বাতিলের দাবি জানান।