• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৩৯ পূর্বাহ্ন

আমিরাতের আজমানে রিয়েল হিরো এওয়ার্ডস নিয়ে বাংলাদেশ কমিউনিটিতে চরম অসন্তোষ : প্রবাসীদের দাবী কালো টাকা সাদা করতে এ আয়োজন


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ১৫, ২০২৩, ১০:০৩ অপরাহ্ন / ১৬
আমিরাতের আজমানে রিয়েল হিরো এওয়ার্ডস নিয়ে বাংলাদেশ কমিউনিটিতে চরম অসন্তোষ : প্রবাসীদের দাবী কালো টাকা সাদা করতে এ আয়োজন

নিজস্ব প্রতিবেদক,সংযুক্ত আরব আমিরাতঃ আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর সংযুক্ত আরব আমিরাতে একটি মেগা ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।কিন্তু এই ইভেন্ট ঘিরে চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে বাংলাদেশ কমিউনিটি ও প্রবাসীদের মাঝে।তাদের দাবী ইভেন্ট অর্গানাইজাররা একটি প্রতারক চক্র।এরা মূলত কোন ইভেন্ট নয়, একটি প্রতারণার ফাঁদ তৈরী করতে আমিরাত এসেছে। পাশাপাশি বিপুল টাকা সাদা করতে তারা মিশন নিয়ে কাজ করছে। মূলত প্রচার-প্রচারণা ছাড়া এ ইভেন্ট জনমনে সন্দেহের সূত্রপাত ঘটিয়েছে।এক বছর পূর্বে তারা এ ধরণের আয়োজনের মাধ্যমে ব্যাপক প্রতারণার নজিরও রয়েছে আমিরাতে।এবারো একি ঘটনার জন্মদিবে বলে সচেতন মহলের ধারণা।

আজ সন্ধ্যা সাতটায় আজমানে এই ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এজন্য বাংলাদেশ থেকে ছুটে এসেছেন জনপ্রিয় নায়ক ঢালিউড সুপারস্টার সাকিব খান। ‘রিয়েল হিরোস অ্যাওয়ার্ড’ নামে এই ইভেন্টে আজ সন্ধ্যায় দেশটির আজমান প্রদেশের উইনার স্পোর্টস ক্লাবে অ্যাওয়ার্ড শো’র মঞ্চে এই সুপারস্টারকে দেখা যাবে বলে আয়োজকরা জানিয়েছেন। শাকিব খান ছাড়াও একই মঞ্চে থাকার কথা রয়েছে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, অভিনেত্রী তমা মির্জা, চলচ্চিত্র পরিচালক ও চিত্রনাট্যকার রায়হান রাফী সহ বেশকয়েকজন তরুণ শিল্পী।তবে এই আয়োজনে চিত্রনায়িকা পরীমনি ও নায়ক শরিফুল রাজ থাকার কথা থাকলেও শেষ মেষ তাদের নাম প্রত্যাহার করেছে ইভেন্ট অর্গানাইজাররা।

২০২১ সালের শেষের দিকে শারজা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে একই আয়োজকরা আরো একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলো।তবে সেটা নিয়ে তুমুল বিতর্ক তৈরি হয়েছিল বাংলাদেশ কমিউনিটির মাঝে। এবারের অনুষ্ঠানটিও ঠিক একই বিতর্কের জন্ম দিয়েছে বলে প্রবাসী বাংলাদেশীরা জানিয়েছে।

মূলত এ অনুষ্ঠানে খ্যাতিমান অভিনেতা অভিনেত্রীদের নিয়ে আসা হলেও প্রচার-প্রচারণায় তেমন বেশি মনোযোগ ছিল না ইভেন্ট অর্গানাইজারদের। কি কারনে এমন রহস্য তা নিয়েও প্রবাসীদের মাঝে নানা প্রশ্নের জন্মদিয়েছে। গতবারের অনুষ্ঠানে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী উপস্থিত থাকলেও এবার কোন মন্ত্রীর উপস্থিতি ঘটছেনা বলে জানা গেছে।

এদিকে আমিরাতের ইভেন্ট সংশ্লিষ্ট কয়েকজন ব্যাক্তি জানান গতবারের অনুষ্ঠানটি আয়োজন করেছিল একজন শিল্পপতির কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে। চেকের বিনিময়ে ওই শিল্পপতি ২ লাখ ৬৫ হাজার দিরহাম ধার দিলেও এখনো পর্যন্ত ওই টাকা পরিশোধ করা হয়নি। ক্যাপটেন মাসুদ নামে বাংলাদেশের একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের ডাইরেক্টর ও বর্তমানে ইভেন অর্গানাইজার মালা খন্দকার এই টাকাটি গ্রহণ করেছিল বলে সূত্রটি জানিয়েছে।কিন্তু টাকা এখনো পরিশোধ না করে পূনরায় আবারো ইভেন্ট আয়োজন করায় ওই শিল্পপতির সাথে মালা খন্দকারের বাক বিতন্ডা হয়েছে বলেও জানা গেছে।তবে শেষ মেষ বিভিন্ন তদবির করে বাংলাদেশ দূতাবাস ও বাংলাদেশ কন্সূলেটের আশ্বাসে মালা খন্দকার আজ ১৫ জানুয়ারী ইভেন্ট আয়োজন করতে যাচ্ছে আজমানে।

মূলত এই অনুষ্ঠানে খ্যাতিমান শিল্পীদের উপস্থিতিতে বিভিন্ন বিভাগে সম্মাননা দেয়ার কথা থাকলেও এটি নিয়েও রয়েছে নানা বিতর্ক। বাংলাদেশ কমিউনিটির নেতৃত্ব স্থানীয় নেতারা বলছেন, ‘এই আয়োজনের মাধ্যমে মূলত টাকার বিনিময়ে অ্যাওয়ার্ড বিক্রি করা হচ্ছে। অ্যাওয়ার্ড শো’র আয়োজককে ঘিরেও বাতাসে ভাসছে নানা গুঞ্জন।’

তবে আয়োজক মালা খন্দকারের ভাষ্য ভিন্ন। তিনি বলছেন, যারা দেশ ও দেশের মানুষের জন্য কাজ করেন তাদের জন্য এই আয়োজন। এই আয়োজনের মাধ্যমে যদি সঠিক মানুষ অ্যাওয়ার্ডগুলো পায়, অন্যরা তাতে উৎসাহিত হবে।

এদিকে স্থানীয় কয়েকজন ইভেন অর্গানাইজার জানান তাদের নানা প্রতারণার কারণে আমিরাতে বাংলাদেশীদের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। ফলে বড় বড় স্পন্সররা বাংলাদেশী কোন ইভেন্টে স্পন্সর করতে চায়না। যার প্রেক্ষিতে বিভিন্ন ইভেন্টে দারুন ক্ষতিগ্রস্ত হয় প্রবাসে অবস্থানরত ইভেন্ট অর্গানাইজাররা। তাই এখনি ইভেন্টের নামে প্রতারণা বন্ধ করতে জোরালো দাবী জানিয়েছেন তারা।