বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শ্রীমঙ্গল এ র‍্যাব ৯ এর অভিযান এ ৬৭০ পিস ইয়াবা সহ আটক ১ মৌলভীবাজার এর তরুণ আইটি উদ্যোক্তা তারেক আহমদের গল্প দোয়ারা বাজারে চাকরি স্থায়ীকরণের দাবিতে মানববন্ধন যশোরের শার্শায় কিশোরকে খুন করে ইজিবাইক ছিনতাই নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের অভিনন্দন লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় মাদকসহ ভ্যান চালক আটক লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় শিশু ধর্ষন চেষ্টার আসামী গ্রেফতার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিবের শ্রদ্ধা কক্সবাজারের ঈদগাঁওতে পূরবী বাসের চাপায় সিএনজি চালকসহ নিহত ৪ নড়াইলের কালিয়ায় ইজারা বহির্ভূত স্থানে বালু উত্তোলন করায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা



রাঙ্গামাটিতে বছরে শতকোটি টাকার কলা বাণিজ্য

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৩৪ Time View

জেলা প্রতিনিধি, রাঙ্গামাটি : পাহাড়ে আদিকাল থেকেই চাষ হয়ে আসছে কলা। আগে পাহাড়ে প্রাকৃতিক ভাবে কলার উৎপাদনের ওপর কৃষকরা নির্ভরশীল হলেও সময়ের ব্যবধানে ব্যক্তিগত উদ্যোগে বেড়েছে কলা চাষ। জুম পাহাড়ের অন্যান্য ফসলের সঙ্গে সাথী ফসল হিসেবে কলা চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। পাহাড়ে মাটিভেদে বিভিন্ন জাতের কলার চাষ হয়। পাহাড়ে কলা চাষে কীটনাশক ব্যবহার হয় না বললেই চলে। এছাড়া ফলন ভালো হওয়ায় রাঙ্গামাটির কৃষি অর্থনীতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে কলা। কৃষক ও কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, রাঙ্গামাটিতে প্রতি বছর শতকোটি টাকার কলা বেচাকেনা হয়।

কৃষি বিভাগ জানায়, পাহাড়ে কয়েক ধরনের কলা চাষ হলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দুই জাতের কলা দেখা যায়। একটি বাংলা কলা। স্থানীয় ভাষায় এর নাম কাট্টলি কলা। অন্যটি চাঁপা কলা, স্থানীয় নাম চম্পা। উঁচু পাহাড়ের মাটিতে জন্মায় বলে এগুলোকে পাহাড়ি কলাও বলা হয়। এছাড়া সাগর কলাসহ আরও বেশকিছু জাতের কলা চাষ হয়। পুষ্টিগুণ বেশি হওয়ায় চাঁপা কলার চেয়ে দ্বিগুণ দামে বিক্রি হয় বাংলা কলা। পাহাড়ে বাংলা কলারই চাষ বেশি হয়। কম পরিশ্রম ও অধিক মূল্যের কারণে কলা চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের। সারা বছর কলার ফলন হলেও আগস্ট থেকে নভেম্বরে ফলন হয় সবচেয়ে বেশি। এ সময়ের কলা আকারেও বড় হয়।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, ২০২১-২২ অর্থবছরে জেলার ১১ হাজার হেক্টর এলাকায় কলার চাষ হয়েছে। যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে দুই লাখ ৪০ হাজার টন। ওজন বিবেচনায় উৎপাদিত কলা প্রতি ছড়া (কাঁধি) গড়ে ১০০ টাকা হিসেবে বিক্রি হলে বছরে শতকোটি টাকার ব্যবসা হয়।

ঢাকা থেকে আসা ব্যবসায়ী রমিজ উদ্দিন বলেন, রাঙ্গামাটির পাহাড়ি কলা মান ও পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। এ কারণে চাহিদাও বেশি। তাই প্রতি মাসে রাঙ্গামাটি থেকে ২-৩ ট্রাক কলা ঢাকায় নিয়ে যায়।

বালুখালী থেকে বনরূপার সমতা ঘাটে কলা বিক্রি করতে আসা কৃষক আনন্দ মোহন চাকমা বলেন, গত বছর যে দাম পেয়েছি, এবছর সেটা পাচ্ছি না। ফলে লোকসান দিয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে। তিনি আরও জানান, ওজনের কারণে পাহাড়ে উৎপাদিত কলা বাজারে আনা কষ্টসাধ্য এবং খরচও বেশি। এরপরও অন্যান্য বছর যে লাভ হয়, এবার সেটা পাইনি।

রাঙ্গামাটি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ তপন কুমার পাল বলেন, পাহাড়ে এবছর ১১ হাজার হেক্টর জমিতে কলার চাষ হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য শতকোটি টাকা। তিনি আরও বলেন, পাহাড়ে মাটিভেদে বিভিন্ন জাতের কলার চাষ হয়। এলাকায় কলা চাষে কীটনাশক ব্যবহার হয় না বললেই চলে।



Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category



© All rights reserved © 2020 ajkerbd24.com
Design & Development By: Atozithost
Tuhin