• ঢাকা
  • রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন

গোপালগঞ্জ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে পরিচালকের পদটি শূন্য থাকায়  অব্যবস্থাপনা চরমে


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ৫, ২০২২, ৪:১৮ অপরাহ্ন / ৮৮৫
গোপালগঞ্জ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে পরিচালকের পদটি শূন্য থাকায়  অব্যবস্থাপনা চরমে

কে এম সাইফুর রহমান,গোপালগঞ্জঃ ঢাকা -খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জের ঘোনাপাড়ায় প্রতিষ্ঠিত দেশে বৃহত্তম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান দীর্ঘ ৩ মাস যাবত পরিচালকহীন অবস্থায় রয়েছে। এতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ওই হাসপাতালে জরুরি চোখের চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে।

শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের পরিচালক অধ্যাপক ডা. সাইফুদ্দিন আহমেদ সরকারি চাকুরীর মেয়াদ শেষে অবসরে যাওয়ার দীর্ঘ ৩ মাস অতিবাহিত হলেও ওই হাসপাতালে নতুন কোন পরিচালক যোগদান না করায় বর্তমানে পরিচালকের পদটি শূন্য থাকায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণীর নামে মানব সেবায় প্রতিষ্ঠিত দেশের অন্যতম চক্ষু হাসপাতালটির আজ বেহাল দশা।

শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে, শুধু চক্ষু চিকিৎসা সেবা নিয়েই নয়, হাসপাতালে আউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে চুক্তিভিত্তিক বিভিন্ন পদে কর্মরত কর্মচারীদের কয়েক মাসের বেতন-ভাতা নিয়মিত ভাবে না পেয়ে চরম মানবেতর জীবন-যাপন করছেন তারা। এতে চরম ক্ষোভ ও হতাশা নিয়ে তারাও ঠিকভাবে সার্ভিস দিতে পারছেন না। তাছাড়া হাসপাতালে আধুনিক বিভিন্ন যন্ত্রপাতির অভাবে দূরদূরান্ত থেকে আগত রোগীরা সঠিক চিকিৎসা না পেয়ে এবং কর্তব্যরত চিকিৎসকরা প্রায় সময় তাদেরকে ঢাকা-খুলনা রেফার করাতে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে তাদের।

উল্লেখ্য, অবসরে যাওয়া অধ্যাপক ডা. সাইফুদ্দিন আহমেদ পরিচালক থাকাকালীন সময়ে বিনামূল্যে হাজার হাজার মানুষের চোখের ছানি অপারেশন করেছেন। এছাড়াও তার উদ্যোগে জেলার বিভিন্ন স্থানে বহুসংখ্যক চক্ষু ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনেকে সরকারের নীতিনির্ধারকদের নিকট তাকে পুনরায় পদায়নের দাবিও জানান।

পরিশেষে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের স্বাস্থ্য বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও গোপালগঞ্জ-২ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ড.শেখ ফজলুল করিম সেলিমের আন্তরিক প্রচেষ্টায় গোপালগঞ্জ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব চক্ষু হাসপাতাল ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে অচিরেই নতুন পরিচালক পদায়নের ব্যবস্থা করা, আধুনিক যন্ত্রপাতি স্থাপন, পর্যাপ্ত ওষুধ-পত্র সহ শুন্যপদে লোকবল নিয়োগ দিয়ে একটি পরিপূর্ণ হাসপাতালে রুপান্তর করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে সচেষ্ট হতে জোর দাবি জানিয়েছেন গোপালগঞ্জের সচেতন মহল।