• ঢাকা
  • রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন

স্বামীর ঘুষের টাকায় সিদ্ধিরগঞ্জ পল্লীতে স্ত্রীর বাড়ি শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে ঘুষখোর ভুমি কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম : এলাকায় চাঞ্চলের সৃষ্টি


প্রকাশের সময় : মার্চ ১০, ২০২৩, ১:২৫ অপরাহ্ন / ৬৩
স্বামীর ঘুষের টাকায় সিদ্ধিরগঞ্জ পল্লীতে স্ত্রীর বাড়ি শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে ঘুষখোর ভুমি কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম : এলাকায় চাঞ্চলের সৃষ্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক, নারায়ণগঞ্জঃ স্বামীর ঘুষের টাকায় সিদ্ধিরগঞ্জ পল্লীতে স্ত্রীর বাড়ি শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে ঘুষখোর ভুমি কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম : এলাকায় চাঞ্চলের সৃষ্টি হয়েছে।

গত সাত মার্চ নারায়ণগঞ্জ এর একটি স্থানীয় পত্রিকায় বিলাসবহুল গাড়ি দিয়ে লোকজনের আনাগোনা স্বামীর ঘুষের টাকায় সিদ্ধিরগঞ্জে স্ত্রীর বাড়ি শীর্ষক সংবাদ প্রকাশের পর সরজমিন গতকাল ৮ মার্চ সিদ্ধিরগঞ্জের ভূমি পল্লী নামে পরিচিতি এলাকায় গিয়ে এনায়েতনগর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সামান্য সহকারী ভূমি কর্মকর্তা কামরুল ইসলামের বিশাল বিশাল বাড়ির খোঁজ পাওয়া যায়।

এই দুর্নীতিবাজ সহকারি ভূমি কর্মকর্তা ঘুষের টাকায় প্রায় ৫০ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের পাহাড় করেছেন। সংবাদপত্রে এই রিপোর্ট প্রকাশের পর সিদ্ধিরগঞ্জের ভূমি পল্লীতে অবস্থিত তার বাড়ি থেকে পালিয়ে গেছেন কামরুল ইসলাম।

আমাদের অনুসন্ধানী সাংবাদিক টিম নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকার সংবাদের সূত্র ধরে ৬নং গলিতে ছয়তলা বিশাল একটি বাড়ির সন্ধান পাওয়া যায় মালিক ফতুল্লা থানার এনায়েতনগর ইউনিয়ন ভূমি অফিস সহকারী কর্মকর্তা।

 

ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় তার স্ত্রী খাদিজা পাপিয়া একা বাসায়। সে জানায় তার স্বামী বাড়িতে নেই এ সময় বার বার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে ভূমি কর্মকর্তা কোন ফোন রিসিভ করেনি।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পাপিয়া জানায় বাড়ি ঘর সব কিছু তার স্বামী করেছে। এ সম্পর্কে সে সব জানে আমি কিছু জানি না।

এলাকাবাসী জানায়, কামরুল ইসলাম একজন বড় মাপের ঘুষখোর। জমি সংক্রান্ত বিষয়ে সে কোটি টাকা পর্যন্ত ঘুষ নিয়ে থাকে বিশেষ করে সরকারি সম্পত্তি বেসরকারি বা ভূমিদসুদের হাতে তুলে দিতে এই দুর্নীতিবাজ কামরুল ইসলাম মোটা অংকের ঘুষ খেয়ে কাজ করে।

তার বিষয়ে আমাদের অনুসন্ধানী তথ্য সংগ্রহের কাজ চলছে যা অচিরে প্রকাশ করা হবে।