• ঢাকা
  • বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৫৯ অপরাহ্ন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ম্যুরাল উদ্বোধন ও জয়িতা টাওয়ার নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ৩০, ২০২১, ৩:১৪ অপরাহ্ন / ২৩৪
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ম্যুরাল উদ্বোধন ও জয়িতা টাওয়ার নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

মনিরুজ্জামান অপূর্ব,ঢাকা : বাংলাদেশ শিশু একাডেমি প্রাঙ্গণে নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ম্যুরাল উদ্বোধন ও ঢাকার ধানমন্ডিতে জয়িতা টাওয়ার নির্মাণ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । আগামীকাল ১ ডিসেম্বর সকাল ১০ টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি ঢাকায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এ অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হবেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা।

জাতির পিতার স্মৃতি সরংক্ষণ এবং নতুন প্রজন্মের নিকট জাতির পিতার অবদান তুলে ধরার লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি প্রাঙ্গণে নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর টাইলস ম্যুরাল নির্মাণ করা হয়েছে। ম্যুরালটির উচ্চতা ১৪ ফুট.৬ ইঞ্চি ও প্রস্থ ১০ ফুট ৬ ইঞ্চি। জাতির পিতার নবনির্মিত এ ম্যুরালটির মাধ্যমে বর্তমান প্রজন্মের শিশুরা মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ সৃষ্টির ইতিহাস বিষয়ে আরো বেশি জানতে উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত হবে।

 

রাজধানীর ধানমন্ডির ২৭ নম্বর (পুরাতন) রোডে এক বিঘা জমির ওপর একশত আটষট্রি কোটি চল্লিশ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে বারতলা বিশিষ্ট জয়িতা টাওয়ার। দেশের নারী উদ্যোক্তাদের জয়িতা ব্রাণ্ডের আওতায় নানামুখী ব্যবসা উদ্যোগে সম্পকৃক্ত করার মাধ্যমে নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে অত্যাধুনিক ভৌত অবকাঠামো সুবিধা সম্বিলত জয়িতা টাওয়ার নির্মাণ করা হচ্ছে। জয়িতা টাওয়ারে রয়েছে নারী উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্য বিক্রয়, প্রদর্শনী স্থান, প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও আন্তর্জাতিক মানের সেমিনার কক্ষ। এ ভবনে আরো থাকছে শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র, নারীদের জন্য জিমনেসিয়াম, সুইমিং পুল ও মাল্টিপারপাস হল।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে ২০১১ সালের ১৬ নভেম্বর জয়িতা ফাউন্ডেশন কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন। জয়িতা’র কার্যক্রম উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন পর্যায়ক্রমে বিভাগ, জেলা ও উপজেলায়ও জয়িতার কার্যক্রম চালু করা হবে। জয়িতা ফাউন্ডেশন নারী উদ্যোক্তাদের দক্ষতা, সক্ষমতা বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, উৎপাদিত পন্য বিক্রয় ও ব্রান্ডিং এর জন্য একটি নিবেদিত প্লাটফর্ম। বর্তমানে ধানমন্ডির রাপা প্লাজায় জয়িতা বিপণন কেন্দ্রে ১৮০ টি স্টলের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে প্রায় ১৮ হাজার নারী উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করা হচ্ছে। এরই মধ্যে সরকার দেশের প্রতিটি বিভাগে প্রতিকীমূল্যে ১ বিঘা করে জমি বরাদ্দ দিয়েছে। এর মাধ্যমে দেশব্যাপী একটি নারীবান্ধব আলাদা বিপণন নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা হবে। এ বছর জয়িতা ফাউন্ডেশনের পথচলার এক দশক পূর্ণ হয়েছে।

অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার, অন্যান্য টেলিভশন ও সোশ্যাল মিডিয়ায় সরাসরি সম্প্রচার করা হবে। এ উপলক্ষে বিশেষ পোস্টার, বুকলেট প্রকাশ এবং রাস্তা ও সড়ক দ্বীপ সজ্জিত করা হয়েছে।