বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
আওয়ামী লীগের বহিষ্কাকৃত নেতা ও ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর চিত্তরঞ্জন দাস ও মহিলা কাউন্সিলর নাসরিন আহমেদ এ-র আপত্তিকর চিত্র ফাঁস ১১ সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব অপ্রত্যাশিত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকা বিভাগ সাংবাদিক ফোরামের উদ্যোগে ‘হাওড় উৎসব’ অনুষ্ঠিত গোপালগঞ্জে টুটুল চৌধুরীকে পুনরায় ইউপি চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় ইউনিয়নবাসী সংসদ সদস্য মনুর এক বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে সর্বস্তরের জনগণকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন  ডিইউজে’র সাংগঠনিক সম্পাদক জিহাদুর রহমান জিহাদের পিতা মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী সরদারের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী আজ জেনে-শুনেই নেতিবাচক স্ট্র্যাটেজি নিয়েছিলেন ইভ্যালির রাসেল এমপি মনুর হাতে মারধরের শিকার ডেমরা সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লেখক ও স্ট্যাম্প ভেন্ডার কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক এবার পাওয়া গেল দেড় কোটির দুই অ্যাপার্টমেন্ট ভিখারির! পাক বিমান বাহিনীর জন্য চায়নার তৈরীকৃত ড্রোন এখন দু:স্বপ্ন

আইপি টিভিতে এরা কারা : প্রশাসনের হস্তক্ষেপ জরুরী

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১৪ আগস্ট, ২০২১
  • ৯৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি,ঢাকাঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি ‘কর্নেল’ ফারুক রহমানের দল ফ্রিডম পার্টি। আইপি টিভি ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মুহাম্মদ আতাউল্লাহ খান বিতর্কিত সেই ফ্রিডম পার্টি করতেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ছাত্রশিবিরের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগও উঠেছিল তার বিরুদ্ধে। তবে সে সব পরিচয় গোপন রেখেই এই আতাউল্লাহ খান খুলেছেন ‘জনতার টিভি’ নামে একটি আইপি টিভি (ইন্টারনেট প্রটোকল টেলিভিশন)। তবে শুধু তিনি একাই নন, তার মতো একই ভাবে আরও বহু বিতর্কিত ব্যক্তি রয়েছেন আইপি টিভির মালিকদের তালিকায়। রয়েছেন চাঁদাবাজির ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তিরাও। এমনকি একাধিকবার অস্ত্র-গোলাবারুদসহ আটক ও খুনের মামলার আসামিদের দখলেও রয়েছে আইপি টিভি।

এসব ব্যক্তি অনেক সময় নিজেকে ক্ষমতাসীন দলের নেতা পরিচয় দিলেও দলে তাদের নেই কোনো পদ-পদবি। অনেকে পরিচয় দেন ১৪ দলের শরিক জোটের বড় নেতা। আইপি টিভির নামে ইউটিউবে চ্যানেল খুলে নিজেকে পরিচয় দেন টেলিভিশনের মালিক। দেশে আইপি টিভির সংখ্যা কত তার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই সংশ্লিষ্ট কারও কাছেই। তবে সাম্প্রতিক সময়ে যে সব আইপি টিভির কথা জানা যাচ্ছে তার বড় অংশই বিতর্কিত রাজনৈতিক সংগঠন জামায়াতে ইসলামী ও এর ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতাকর্মীদের দ্বারা পরিচালিত। মূলধারার গণমাধ্যমে স্থান না পেয়ে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা ঠাঁই নিয়েছে আইপি টিভিতে।

দেশের যত্রতত্র গজিয়ে ওঠা এসব আইপি টিভির একটিরও সরকারি অনুমোদন নেই। এসব টিভিতে কী ধরনের প্রচার-প্রচারণা চলছে সেটিও নজরদারিতে নেই। এমন পরিস্থিতিতে মূল ধারার টিভিগুলো আইপি টিভির কারণে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে অনেক ক্ষেত্রে। মূলধারার টিভির নীতিনির্ধারকরা বলছেন, এখনই সময় এসব কথিত টিভির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে না পারলে সমাজে গণমাধ্যম সম্পর্কে ভুল বার্তা যাবে।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব (টিভি-২) রুজিনা সুলতানা আইপি টিভি প্রসঙ্গে বৃহস্পতিবার বলেন, এখন পর্যন্ত একটি আইপি টিভিরও অনুমোদন তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া হয়নি। অনেকে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছে। অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালার আলোকেই তাদের নিবন্ধনের কার্যক্রম চলছে।

অস্ত্রসহ একাধিক মামলার আসামি টিনুর ‘সিটিজি ক্রাইম’ : চার ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে নুর মোস্তফা টিনু দ্বিতীয়। টিনুর বড় ভাই মোহাম্মদ সেলিম জামায়াতে ইসলামীর রুকন পর্যায়ের একজন নেতা। টিনুর ছোট ভাই নুর মুহাম্মদ শিপু চট্টগ্রামের চকবাজার থানা ছাত্রদলের সভাপতি। চট্টগ্রামের গোল পাহাড় মোড় থেকে ২০০৩ সালে একটি অত্যাধুনিক চায়নিজ একে-২২ রাইফেল, একটি ম্যাগাজিনসহ টিনুকে গ্রেপ্তার করেছিল নগর গোয়েন্দা পুলিশ। আওয়ামী লীগ ২০০৯ সালে সরকার গঠনের পর টিনু নিজেকে যুবলীগের নেতা হিসেবে পরিচয় দেওয়া শুরু করেন। ২০১২ সালে চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানায় টিনুর বিরুদ্ধে আবারও অস্ত্র ও বিস্ফোরক আইনে মামলা হয়। এরপর ২০১৯ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর তাকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি শটগান ও ৬৭ রাউন্ড গুলিসহ আটক করে র‌্যাব।

টিনুর বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম কলেজ ও মহসীন কলেজে পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়া নগরীর পাঁচলাইশ, চান্দগাঁওসহ বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, জমি দখলের মামলা ও অভিযোগ রয়েছে। ২০১৮ সালে নগর পুলিশের তৈরি করা কিশোর গ্যাংয়ের ‘গডফাদার’ তালিকায় টিনুর নাম ছিল ওপরের দিকে। সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের একাধিক মামলায় অভিযুক্ত টিনুর রয়েছে ‘সিটিজি ক্রাইম’ নামে একটি আইপি টিভি।

শিবির ক্যাডার হাছানের ‘চট্টলা ২৪’ : এক সময়ের টেম্পোচালক মোহাম্মদ হাছান। চট্টগ্রামের রাউজানের উত্তর সর্ত্তা গ্রামে রয়েছে তিনতলা বিলাসবহুল ডুপ্লেক্স বাড়ি। এছাড়া চট্টগ্রাম নগরীতে প্রেস ক্লাবের পেছনে আম্বিয়া সেরিন নামে একটি ভবনে রয়েছে বিলাসবহুল ফ্ল্যাট। রয়েছে একটি ল্যান্ড ক্রুজার ও একটি হুন্দাই জিপ এবং একটি টয়োটা প্রিমিও কার। বাড়ি-গাড়িতেই শেষ নয়, দুটি বৈধ আগ্নেয়াস্ত্রেরও মালিক হাছান। নিজের ফেইসবুক পেজ সরকারের মন্ত্রী, এমপি ও বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের ছবি দিয়ে সাজিয়ে রেখেছেন। দেখলে মনে হবে হাছানের মতো আওয়ামী লীগ করা মানুষ দেশে কমই আছেন। অথচ চট্টগ্রামের বড় অংশের মানুষই তাকে চেনেন অধ্যক্ষ গোপাল কৃষ্ণ মুহুরীকে হত্যাকারীদের একজন হিসেবে। চট্টগ্রামের নাজিরহাট কলেজের অধ্যক্ষ বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা গোপাল কৃষ্ণ মুহুরী তার কলেজে ইসলামী ছাত্রশিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ করেছিলেন। আর এ কারণেই ২০০১ সালের ১৬ নভেম্বর তাকে নগরীর জামালখানের বাসায় কুপিয়ে নৃশংসভাবে খুন করে শিবির ক্যাডাররা। গোপাল কৃষ্ণ হত্যা মামলায় সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে ২০০২ সালের ২০ আগস্ট নগর গোয়েন্দা পুলিশ হাটহাজারী উত্তর মাদ্রাসা থেকে গ্রেপ্তার করে হাছানকে। তবে পর্যাপ্ত প্রমাণের অভাবে তিনি ওই মামলায় ছাড়া পান।

হাছানের সন্ত্রাসী কর্মের আরও অতীত ইতিহাস রয়েছে। ১৯৯৯ সালের ১১ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের সদরঘাটের ডিলাইট রেস্তোরাঁ থেকে কাটা রাইফেল ও গুলিসহ গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। সাবেক শিবির ক্যাডার এই হাছানের নিয়ন্ত্রণে এখন ‘চট্টলা ২৪’ নামের একটি আইপি টিভি।

ফ্রিডম পার্টি ও সাবেক শিবির ‘নেতা’র জনতার টিভি : মুহাম্মদ আতাউল্লাহ খানের ভিজিটিং কার্ডে উল্লেখিত পরিচয় অনুযায়ী তিনি বাংলাদেশ গণআজাদী লীগের মহাসচিব। দলটি ১৪ দলীয় জোটের শরিক। জনতার টিভি নামে একটি আইপি টিভির মালিক এই আতাউল্লাহ খান আইপি টিভি ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি। তার বিরুদ্ধে ছাত্রশিবিরের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি ‘কর্নেল’ ফারুকের দল ফ্রিডম পার্টি করতেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব কারণে ২০২০ সালে গণআজাদী লীগের মহাসচিব পদ থেকে আতাউল্লাহ খানকে বহিষ্কারও করা হয়। আতাউল্লাহ খানের বাড়ি কক্সবাজার

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 ajkerbd24.com
Design & Development By: Atozithost
Tuhin