• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

সৌদি গিয়ে নির্যাতনের শিকার নারী, রিক্রুটিং এজেন্সির এমডি গ্রেফতার


প্রকাশের সময় : মে ১০, ২০২৩, ১:২৩ অপরাহ্ন / ৫৫
সৌদি গিয়ে নির্যাতনের শিকার নারী, রিক্রুটিং এজেন্সির এমডি গ্রেফতার

এম রাসেল সরকারঃ রাজধানীর পল্টনে মানবপাচার মামলায় অভিযুক্ত রিক্রুটিং এজেন্সির এমডিসহ দুইজনকে গ্রেফতার করেছে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)।গ্রেফতাররা হলেন- রিক্রুটিং এজেন্সি স্টার লাইন অ্যাসোসিয়েটের (আর. এল-৭৭৬) ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফিরোজ মো. মানসুরুল হক (৬০) ও অফিস কর্মচারী মো. রাজন (৩০)। মঙ্গলবার এপিবিএনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম মিজানুর রহমান এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, রাজধানীর খিলগাঁও এলাকার এক নারী (৩০) চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারি রিক্রুটিং এজেন্সি স্টার লাইন অ্যাসোসিয়েটের মাধ্যমে গৃহকর্মী হিসেবে সৌদি আরবে যান। সেখানে যাওয়ার পর থেকেই নিয়োগকর্তা কর্তৃক প্রতিনিয়ত শারীরিক, মানসিক ও যৌন নির্যাতনের শিকার হন।

ভুক্তভোগী নারী এ ঘটনা নিজের স্বামীকে জানান। এরপর তার স্বামী বারবার যোগাযোগ করলে এক পর্যায়ে ভুক্তভোগী নারীকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য রিক্রুটিং এজেন্সি চার লাখ টাকা দাবি করে।

এ অবস্থায় কোনো উপায় না পেয়ে ওই নারীর স্বামী এপিবিএনের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ করেন। লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগীর স্বামী জানান, তার স্ত্রীকে জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর কোনো প্রকার প্রশিক্ষণ ও ছাড়পত্র (স্মার্ট কার্ড) ছাড়াই সৌদি আরবের দাম্মাম আরআর শহরে পাঠানো হয়েছে।

অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এপিবিএন প্রাথমিক অনুসন্ধানে ঘটনার সত্যতা পায়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে এয়ারপোর্ট আর্মড পুলিশের একটি টিম রিক্রুটিং এজেন্সি স্টার লাইন অ্যাসোসিয়েটের (আর. এল-৭৭৬) ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফিরোজ মো. মানসুরুল হক ও অফিস কর্মচারী মো. রাজনকে গ্রেফতার করে। পল্টন মডেল থানা এলাকার চায়না টাউন ভবন থেকে সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী নারীর স্বামী বাদী হয়ে পল্টন মডেল থানায় মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে মামলা করেছেন। গ্রেফতারদের পল্টন মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান এপিবিএনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম মিজানুর রহমান।