• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৩৭ পূর্বাহ্ন

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জস্থ শাহজালাল ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের ইউরিয়া সার পরিবহনে অনভিজ্ঞ দরদাতাকে কাজ দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ


প্রকাশের সময় : জুন ২২, ২০২২, ৮:২৯ অপরাহ্ন / ৬০
সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জস্থ শাহজালাল ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের ইউরিয়া সার পরিবহনে অনভিজ্ঞ দরদাতাকে কাজ দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জস্থ শাহজালাল ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের ইউরিয়া সার পরিবহনে অনভিজ্ঞ দরদাতাকে কাজ দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কোম্পানির নিয়ম ভঙ্গ করে সম্পূর্ণ অনভিজ্ঞ দরদাতাকে সার পরিবহন কাজ দেয়ার চেষ্টা থেকে বিরত থাকতে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবরে একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। ফায়সাল এন্ড কোম্পানী এবং সুম্মিত এসোসিয়েশনের ম্যানেজিং পার্টনার ডি এম ফয়সল গত ৯ জুন শাহজালাল ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবরে এ অভিযোগ প্রদান করেন। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, শাহজালাল ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী গত ৬ জুন তারিখের সার পরিবহন দরপত্রে এএফসিসিএল কারখানা গুদামে ৫০ হাজার মেট্রিক টন সার পরিবহনে মেসার্স জাহিদ এন্টারপ্রাইজ সর্বনিম্ন দর প্রদান করে।

এরই সুবাদে উক্ত জাহিদ এন্টারপ্রাইজ সার পরিবহনের সুযোগ লাভের অপেক্ষায় রয়েছে। যদিও দরপত্র দলিলের (ঙ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী উক্ত প্রতিষ্ঠানের পরিবহন কাজের কোন অভিজ্ঞতা নেই। বিসিআইসি’র নিয়ন্ত্রিত যে কোন কারখানা/ বাফার গুদাম অথবা সরকারি/ আধা-সরকারি/ স্বায়ত্বশাসিত সংস্থার নিয়ন্ত্রণাধীন কোন প্রতিষ্ঠানে ২০১৭/২০১৮ অর্থবছর হতে অদ্যাবধি যে কোন বছরে কমপক্ষে ১০ হাজার মেট্রিক টন মালামাল সন্তোষজনকভাবে এক গুদাম হতে অন্য গুদামে পরিবহন কাজের অভিজ্ঞতার সনদপত্র দাখিল করতে হবে। অভিজ্ঞতার সনদপত্র বাস্তব যাচাইয়ে কোন অনিয়ম প্রমাণিত হলে সেক্ষেত্রে দরদাতার দর অগ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে। অথচ মেসার্স জাহিদ এন্টারপ্রাইজের কোন অভিজ্ঞতা না থাকার পরেও রহস্যজনকভাবে তাকে এ দরপত্র দেয়ার পায়তারাঁ চলছে। এ ব্যাপারে শাহজালাল ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের জি.এম (কমার্সিয়াল) রেজাউল বারী জানান, এখন পর্যন্ত ৬ জুনের দরপত্রের কাজ মেসার্স জাহিদ এন্টারপ্রাইজে দেয়া হয়নি। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে হলে বিসিআইসি’র মুখপাত্রের সাথে যোগাযোগের কথা বলেন তিনি। শাহজালাল ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওমর ফারুকের সাথে মোবাইল ফোনে বারবার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।