• ঢাকা
  • সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন

সাবেক আইজিপি এ.ওয়াই.বি.আই সিদ্দিকী এর মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শোক প্রকাশ


প্রকাশের সময় : জুলাই ১৮, ২০২১, ১০:২৯ অপরাহ্ন / ১৩৯
সাবেক আইজিপি এ.ওয়াই.বি.আই সিদ্দিকী এর মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের শোক প্রকাশ

মনিরুজ্জামান অপূর্ব ,ঢাকা : বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক আইজিপি ও অবসরপ্রাপ্ত সচিব এ.ওয়াই.বি.আই সিদ্দিকী এর মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ মনিরুল ইসলাম বিপিএম(বার), পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক, এসবি এবং সাধারণ সম্পাদক মোঃ আসাদুজ্জামান পিপিএম(বার), উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি-মতিঝিল) ডিএমপি গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

রোববার (১৮ জুলাই) বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের দপ্তর সম্পাদক ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার তানভীর সালেহীন ইমন, পিপিএম স্বাক্ষরিত শোকবার্তায় সভাপতি বলেন, সাবেক আইজিপি ও অবসরপ্রাপ্ত সচিব এ.ওয়াই.বি.আই সিদ্দিকী এর মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ গভীরভাবে শোকাহত। তিনি একজন সাংস্কৃতি আন্তঃপ্রাণ ব্যক্তিত্ব এবং সংগীত শিল্পী হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন। তাঁর বর্ণাঢ্য কর্মজীবনে পেশাগত দক্ষতা, বিরল প্রতিভা ও অসামান্য অবদান অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

শোক বার্তায় বলা হয়, সাবেক আইজিপি ও অবসর প্রাপ্ত সচিব এ.ওয়াই.বি.আই সিদ্দিকী ১৮ জুলাই, ২০২১ রাত ১:০৩ টায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী এই সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা ১৯৪৫ সালে চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুন্ডের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তিনি ১৯৭০ সালে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেন। তিনি ২৭ সেপ্টেম্বর ১৯৯৮ হতে ০৭ জুন ২০০০ পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশের ১৬তম আইজিপি হিসেবে সততা,দক্ষতা ও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পানি সম্পদ ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৮৯-১৯৯০ সালে নামিবিয়ায় জাতিসংঘের অধীনে ১ম শান্তিরক্ষা মিশনের কমান্ডার ছিলেন।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক পুত্র, কন্যাসহ অসংখ্য আত্নীয়-স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।