• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৫ Jul ২০২৪, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন

সফলতার পুরস্কার ওয়াসার এমডি হিসেবে পুন:নিয়োগ পেলেন তাকসিম এ খান


প্রকাশের সময় : অগাস্ট ৪, ২০২৩, ১:০৬ পূর্বাহ্ন / ৮৯
সফলতার পুরস্কার ওয়াসার এমডি হিসেবে পুন:নিয়োগ পেলেন তাকসিম এ খান

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাঃ ভালো কাজের পুরস্কার হিসেবে ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) পদে আবারও তিন বছরের জন্য নিয়োগ পেয়েছেন তাকসিম এ খান। এটি তার ষষ্ঠ নিয়োগ। তিনি গত ১৩ বছর ধরে সফলতার সঙ্গে ঢাকা ওয়াসার এমডি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।বৃহস্পতিবার তাকসিন এ খানের ষষ্ঠ বারের পুন:নিয়োগ পত্রের প্রজ্ঞাপনে স্বাক্ষর করেছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রাণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের পাস-২ উপ সচিব মুস্তাফিজুর রহমান।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পানি সরবরাহ ও পয়:নিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ আইন ১৯৯৬ এর ২৮(২) ধারা মোতাবেক প্রকৌশলী তাকসিম এ খানকে তার বর্তমান চাকুরির মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পর অর্থাৎ ১৪ অক্টোবর ২০২৩ থেকে তিন বছরর জন্য ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে নিয়োগ/পুন:নিয়োগের জন্য সরকারের অনুমোদন নির্দেশনক্রমে জ্ঞাপন করা হলো। ১৩ বছর আগে ওয়াসা প্রধানের দায়িত্ব নেওয়ার পরে সেই অবস্থার পরিবর্তনে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন তাকসিম এ খান। তার নেতৃত্বে রাজধানী জুড়ে পানির আধুনিক সংযোগসহ আমূল পরিবর্তন এনেছে ওয়াসা। পাশাপাশি পয়ঃশোধনাগার পুন:নির্মাণ ও সম্প্রসারণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তার সময়ে।

তাকসিম এ খানের সময়ে রাজধানীতে বসবাস করা শ্রমজীবী ও সল্প আয়ের মানুষকে বৈধভাবে পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। গত কয়েক বছরে বৈধভাবে রাজধানীর ৩০০ বস্তিতে ৬৩ হাজার ৬১৮ পরিবারকে পানি সরবরাহ করছে প্রতিষ্ঠানটি।
বর্তমান প্রতিষ্ঠান প্রধানের নেতৃত্বে লসের খাতা বন্ধ করে লাভের মুখ দেখেছে ঢাকা ওয়াসা। এক সময়ে ঢাকা ওয়াসার উৎপাদিত পানির শতকরা ৪০ শতাংশ সিস্টেম লস হিসেবে ধরা হলেও সেটি কমে মাত্র ১০ শতাংশে নেমে এসেছে। এর মূল কারণ ‘ঢাকা ওয়াটার সাপ্লাই নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্ট (ডিডব্লিএসএনআইপি)। এই প্রকল্পের ফলে পানির গতি প্রবাহ ও উৎপাদন ব্যবস্থাপনায় আমূল পরিবর্তন এসেছে। পানি সরবরাহের জন্য বসানো হয়েছে আধুনিক পাইপ লাইন। ফলে সিস্টেম লস কমিয়ে আয়ের পথে হাঁটছে ঢাকা ওয়াসা।

রাজধানীর কয়েক কোটি মানুষের প্রতিদিনের পানির চাহিদা ২৬০ কোটি লিটার। এই চাহিদা মেটাতে ঢাকা ওয়াসা সায়েদাবাদ পানি শোধনাগার ও পদ্মা (জশলদিয়া) পানি শোধনাগার স্থাপন করেছে। মোট চাহিদার বিপরীতে ঢাকা ওয়াসা এখন ২৭০ কোটি লিটার পানি উৎপাদন করছে।পাশাপাশি রাজধানীবাসীর পয়ঃপরিশোধন করে পরিবেশ উপযোগী করতে প্রকল্প নিয়েছে ঢাকা ওয়াসা। যার একটি দাশেরকান্দি পয়ঃশোধনাগার ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেছেন। দেশে এটাই প্রথম এ ধরনের সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট।

প্রতিদিন ৫০ মিলিয়ন লিটার পয়ঃশোধন ক্ষমতাসম্পন্ন দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম একক পয়ঃশোধন কেন্দ্র (এসটিপি) এটি। যা রাজধানীর আশপাশের নদীগুলোকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করবে। নদীগুলোকে বাঁচাতে এটি একটি যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত বলছেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞরা।