• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন

শরীয়তপুর জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক স্বপনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা : মৎস্যজীবিলীগ থেকে হতে পারেন বহিষ্কার


প্রকাশের সময় : এপ্রিল ২, ২০২২, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ন / ১৮৪
শরীয়তপুর জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক স্বপনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা : মৎস্যজীবিলীগ থেকে হতে পারেন বহিষ্কার

শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক এসএম শফিকুল ইসলাম স্বপনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। জাজিরা থানায় কলেজ অধ্যক্ষ মো. দেলোয়ার হোসেনের অভিযোগ দাখিল।

জানা যায়, শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার ডা. মোসলেম উদ্দিন খান ডিগ্রি কলেজে সাংবাদিক পরিচয়ে জেলা মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম স্বপন ও সদস্য মো. বারেক ভূঁইয়া অধ্যক্ষের রুমে প্রবেশ করে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন। এক পর্যায়ে অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেনের নিকট ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করলে স্থানীয় জনরোষে পড়েন তারা। এ ঘটনায় ২২ মার্চ মঙ্গলবার কলেজ অধ্যক্ষ বাদী হয়ে জাজিরা থানায় শফিকুল ইসলাম স্বপন ও মো. বারেক ভূঁইয়াকে আসামী করে অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেন, ২২ মার্চ মঙ্গলবার আমি আমার অফিসে কাজ করতে ছিলাম। আমার কলেজে অভ্যন্তরীন পরীক্ষা চলছিলো। এমতাবস্থায় বিধি-বিধান লঙ্ঘন করে আমার অনুমতি না নিয়ে দুইজন ১। শফিকুল ইসলাম স্বপন ও ২। বারেক ভূঁইয়া সাংবাদিক দাবী করে অসৎ উদ্দেশ্যে, বে-আইনীভাবে একাডেমীক ভবনে প্রবেশ করে অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেনকে বিভিন্ন বিভ্রান্তিমূলক প্রশ্ন করেন। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে দেখে নেওয়ারও হুমকি দেন তারা।
এ ব্যাপারে মামলার বাদী ডা. মোসলেম উদ্দিন খান ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমি থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। পুলিশ বলেছেন আমরা তদন্ত করে অবশ্যই ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। আমি সেই অপেক্ষায় আছি।
স্থানীয় কয়েকজন বলেন, সাংবাদিক দুইজন গণধোলাই খাওয়ার পরিস্থিতি হলে তারা নিজেদের শরীয়তপুর জেলা আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের নেতা পরিচয় দিলে আমরা তাদের ছেড়ে দেই। পরবর্তীতে প্রিন্সিপাল স্যার থানায় মামলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে। এখন যা হওয়ার আইনেই হবে।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, বারেক ভূঁইয়া শরীয়তপুরের সাবেক জামাত নেতা ছিলেন।
এ বিষয়ে জানতে জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জকে কল দিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি।
বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী বলে মনে করেন এলাকাবাসি।