• ঢাকা
  • বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী নারী দিয়ে ফাঁদ পেতে ডিবি-সাংবাদিক পরিচয়ে হাজির হতেন তারা


প্রকাশের সময় : মার্চ ২৮, ২০২৩, ৩:৩৪ অপরাহ্ন / ৬৫
রাজধানীর যাত্রাবাড়ী নারী দিয়ে ফাঁদ পেতে ডিবি-সাংবাদিক পরিচয়ে হাজির হতেন তারা

এম রাসেল সরকার, ঢাকাঃ রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার ধনিয়া এলাকায় নারী দিয়ে ফাঁদ পেতে বিভিন্ন ব্যক্তিকে জিম্মি করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিপুল পরিমাণ টাকা আদায় করতে তার। এমন তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার দিবাগত রাতে র‌্যাবের অভিযানে প্রতারক চক্রের তিন সদস্য গ্রেফতার করেন র‍্যাব-১০।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, মো. তরিকুল ইসলাম, মো. মতিউল ইসলাম ও হাবিবুল্লাহ্। এ সময় তাদের কাছ থেকে দুটি খেলনা পিস্তল, ভুয়া ডিবি পুলিশের জ্যাকেট, ওয়াকিটকি সেট উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও দুই জোড়া হ্যান্ডক্যাপ, একটা চোরাই মোটরসাইকেল, একটি ক্যামেরা, একটি ভুয়া পুলিশ আইডি কার্ড, পাঁচটি ভুয়া সাংবাদিক আইডি কার্ড, নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‍্যাব-১০ এর সহকারী মিডিয়া কর্মকর্তা এএসপি এনায়েত কবির শোয়েব।

গ্রেফতারকৃতরা সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের সদস্য উল্লেখ করে এনায়েত কবির শোয়েব জানান, চক্রের সদস্যরা প্রথমে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ফ্লাট বাসা ভাড়া করে। চক্রের নারী সদস্যরা অর্থ-বিত্তশালী বিভিন্ন ব্যক্তিদের অনৈতিক কাজের লোভ দেখিয়ে তাদের পরিকল্পিত স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে নেওয়ার পর তাদের দলের মেয়ে সদস্যরা কৌশলে তাদের দলনেতা তরিকুল ইসলামকে জানায়। রিকুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা ডিবি পুলিশের জ্যাকেট পরে খেলনা পিস্তল, ওয়াকিটকি সেট, হ্যান্ড ক্যাপ ও ক্যামেরাসহ হাজির হয়ে কৌশলে মেয়ে সদস্যদের সঙ্গে ভুক্তভোগীদের আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে। ভিডিও ধারণের পর তারা ভুক্তভোগীদের ভিডিও দেখিয়ে গ্রেফতার, মামলাসহ বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি দেখিয়ে বিপুল পরিমাণ টাকা আদায় করতেন।

তিনি আরও জানান, গ্রেফতারকৃত হাবিবুল্লাহ চক্রের প্রধান তরিকুলের অন্যতম সহযোগী। বিভিন্ন এলাকা থেকে অনৈতিক কাজ করার জন্য মেয়েদের সংগ্রহ করতেন। দল নেতার আদেশে মেয়ে সদস্যদের মাধ্যমে নিয়ে আসা অর্থ-বিত্তশালী বিভিন্ন ব্যক্তিদের গোপনে ক্যামেরা দিয়ে মেয়েদের সাথে ভিকটিমের আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করতেন। পরবর্তীতে তরিকুলের সহযোগী হয়ে ভুক্তভোগীদের বিভিন্ন ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতেন এই চক্র। হাবিবুল্লাহর বিরুদ্ধে যাত্রাবাড়ী থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

গ্রেফতারকৃত মো. মতিউল ইসলাম তরিকুলের সহযোগী। সে সাংবাদিক পরিচয়ে হাজির হত। পরবর্তীতে সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করতেন। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান র‍্যাবের এ কর্মকর্তা।