• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৩:১২ অপরাহ্ন

রাজধানীর মিরপুর এলাকার গুদারাঘাট-শাহ্পরান বস্তিতে গৃহস্থালী বর্জ্য থেকে জৈবসার তৈরীর উদ্যোগ


প্রকাশের সময় : জুন ৩০, ২০২১, ৫:২৮ অপরাহ্ন / ১৫৭
রাজধানীর মিরপুর এলাকার গুদারাঘাট-শাহ্পরান বস্তিতে গৃহস্থালী বর্জ্য থেকে জৈবসার তৈরীর উদ্যোগ

ইমাম হোসেন ইমনঃ মিরপুর-পল্লবী এলাকার ২নং ওয়ার্ডের অন্তরভুক্ত গুদারাঘাট-শাহপরান বস্তি। এখানে প্রায় ৭০০০ স্বল্প আয়ের মানুষের বসবাস।এলাকাটি সিটি কর্পোরেশনের প্রধান সড়ক থেকে প্রায় ৬-৮ ফুট নীচে অবস্থিত এলাকাটি মূল সড়ক থেকে অনেকটা নীচে অবস্থিত হওয়ায় সিটি কর্পোরেশনের কোন যানবাহন যেতে পারে না।বর্জ্য অপসারণের ভ্যান গাড়ীও এ এলাকায় প্রবেশ করতে পারে না জাতীয় ভিত্তিক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা রিসোর্স ইন্টিগ্রেশন সেন্টার (রিক) গুদারাঘাট-শাহ্পরান বস্তিতে ইউরোপীয় ইউনয়নের সহায়তায় গৃহস্থালী বর্জ্য থেকে জৈবসার উৎপাদনের মাধ্যমে বিকল্প বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তুলতে উদ্যোগ গ্রহণ করে

জৈবসার তৈরীর লক্ষ্যে এলাকার কিছু উৎসাহী স্বেচ্ছাসেবকদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় প্রশিক্ষণ নিয়ে বর্তমানে গুদারাঘাট-শাহপরাণ বস্তিতে গৃহস্থালী বর্জ্য থেকে জৈবসার উৎপাদিত হচ্ছে এবং নিজেদের উৎপাদিত জৈবসার ব্যবহার করে সব্জি উৎপাদন শুরু হয়েছে। প্লাস্টক ও অপচনশীল দ্রব্য যত্রতত্র না ফেলার কারনে এলাকা পরিবেশবান্ধব হয়েছে। অন্যদিকে বস্তি এলাকাটি পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি বস্তির কিছূ মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়। রিকের প্রকল্প সম্বয়কারী জনাব এস.এম.এ. মূঈদ বলেন, নগরের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠি বিশেষকরে বস্তিবাসিরা পানি, পয়:নিস্কাশন,বর্জ্ অপসারন সহ সবধরনের নাগরিক সেবা চাহিদা অনুযায়ী পায় না। অন্যদিকে সেবা প্রদানকারীরাও দরিদ্র মানুষদের প্রতি কিছুটা কম সহনশীল। আমরা ইউরোপিয় ইউনিয়নের সহায়তায় নগর দরিদ্রদের সমস্যা সমাধানের জন্য একটা প্লাটফর্ম তৈরীর উদ্যোগ নিয়েছি মাত্র।