• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০২:২১ অপরাহ্ন

যশোোরের শার্শার আমলাই গ্রামে গলায় দা ধরে গৃহবধুকে ধর্ষণ


প্রকাশের সময় : মার্চ ৯, ২০২৪, ৭:০৯ অপরাহ্ন / ২৭
যশোোরের শার্শার আমলাই গ্রামে গলায় দা ধরে গৃহবধুকে ধর্ষণ

আজিজুল ইসলামঃ যশোরের শার্শা উপজেলার আমলাই গ্রামের এক গৃহবধূর গলায় ধারালো অস্ত্র ধরে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ধর্ষিতা এবং তার শশুর বাড়ীর লোকজন ঘটনার পর পরই গ্রামের মেম্বরের কাছে অভিযোগ দিয়েও এর কোনো সুবিচার পাননি।

 

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, আমলাই গ্রামের আমির আলীর ছেলে ইমাম হোসেন (৪৫) গত বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক ৮টার দিকে প্রতিবেশী এক গৃহবধূর ঘরে প্রবেশ করে এবং গলায় দা ধরে তাকে ধর্ষন করে। এরপর ধর্ষক স্বাভাবিক নিয়মে বাড়ী যেয়ে শুয়ে পড়ে।ঘটনার সময় ধর্ষিতার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না।

ঘটনার পর পরই ধর্ষিতা গৃহবধু বিষয়টি তার স্বামীসহ শশুর বাড়ীর সবাইকে জানায় এবং সকলে মিলে ধর্ষক ইমাম হোসেনকে সাথে নিয়ে গভীর রাতে স্থানীয় মেম্বর সাইফুল ইসলামের কাছে যেয়ে বিস্তারিত বলেন। কিন্তু ৩ দিন পার হলেও সাইফুল মেম্বর বিষয়টির কোনো সুরাহা করেননি।

এ ব্যাপারে সাইফুল মেম্বর বলেন, ছেলের কাছে জিঞ্জাসাবাদে সে সব স্বীকার করেছে। মেয়েটিকে জোর পূর্বক ধর্ষন করা হয়েছে এ জন্য আমি তাদের থানায় অভিযোগ দিতে বলেছি। কিন্তু তারা থানায় কোনো অভিযোগ দেননি। অন্যদিকে ধর্ষিতার পরিবারের দাবী সে আমাদের পুত্রবধু, তাকে নিয়ে ঘর সংসার করতে হবে তাই থানা পুলিশ করতে চাচ্ছি না।

স্থানীয় কয়েকজন জানিয়েছেন, ধর্ষক ইমাম হোসেনের স্ত্রী অসুস্থ, অপারেশনের রোগী এমনকি সে প্রতিবন্দি। রাতে রাতে এ ধরনের কাজ সে প্রায়ই করে থাকে বলে শোনা যায়। তবে লজ্জায় কেউ মুখ খোলে না। এই বিষয়টি যখন জানাজানি হয়ে গেছে, তাই ধর্ষকের কঠিন বিচার হওয়া উচিৎ।

শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম মনিরুজ্জামান জানান, ঘটনাটি পুলিশকে কেউ জানায়নি। আজ ঘটনাটি জানার সাথে সাথে আমি পুলিশের একটি টিম নির্যাতিতা পরিবারের বাড়ি পাঠিয়েছি এবং তাদের আইনগত সকল সহযোগিতা পুলিশের পক্ষ থেকে দেওয়া হবে বলে আসস্থ করে তাদের শার্শা থানায় এসে অভিযোগ দেওয়ার জন্য আসতে বলেছি। তদন্ত করে অপরাধীর বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিলো বলে জানা গেছে।