• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:১৫ পূর্বাহ্ন

যশোরের শার্শা উপজেলাধীন বেনাপোলে “আন্তর্জাতিক দূর্ণীতি বিরোধী দিবস’ উদযাপিত


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ৯, ২০২২, ৮:০৮ অপরাহ্ন / ৫১
যশোরের শার্শা উপজেলাধীন বেনাপোলে “আন্তর্জাতিক দূর্ণীতি বিরোধী দিবস’ উদযাপিত

খোরশেদ আলম, যশোরঃ “আপনার অধিকার আপনার দায়িত্ব দুর্ণীতিকে না বলুন”, “দুর্ণীতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ বিশ্ব”, এছাড়াও ” রুখবো দুর্ণীতি গড়বো দেশ, তাহলেই হবে সোনার বাংলাদেশ ” এমন সব অঙ্গিকার নিয়ে। যশোরের শার্শা উপজেলাধীন বেনাপোলে উদযাপিত হলো “আন্তর্জাতিক দুর্ণীতি বিরোধী দিবস’২০২২। “দুর্ণীতি দমন কমিশন” এবং দুর্ণীতি  দমন প্রতিরোধ কমিটি”র যৌথ উদ্যোগে দিবসটি পালনে নানা কর্মসুচি গ্রহণ করা হয়। এ দিনের কর্মসুচি’র মধ্যে ছিল র‍্যালি, মানববন্ধন এবং আলোচনা সভা।

৯ ডিসেম্বর ( শুক্রবার ) বেলা ১১ টায় র‍্যালি’র কর্মসুচি দিয়ে শুরু করা হয় দিবসটি’র কার্যক্রম। এসময় র‍্যালিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, শার্শা উপজেলার সহকারী (ভূমি) কমিশনার ফারজানা ইসলাম।

র‍্যালি’তে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক-মোঃ সিরাজুল ইসলাম, বেনাপোলের মরহুম মশিউর রহমান মরিয়ম বালিকা বিদ্যালয় এর সহকারী প্রধান শিক্ষক-ইন্তাজুর রহমান, বেনাপোল পোর্টথানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ কামাল হোসেন ভূঁইয়া, শার্শা উপজেলা শাখা’র দুর্ণীতি দমন প্রতিরোধ কমিটি’র সভাপতি-আহসান উল্লাহ মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক-আক্তারুজ্জামান লিটু, সদস্য-শারমিন আক্তার, একতা প্রেসক্লাব বেনাপোল এর প্রধান কার্যকারী সদস্য সিনিয়র সাংবাদিক-মোঃ সাহিদুল ইসলাম শাহীন সহ অন্যান্য সাংবাদিকবৃন্দ এবং মানবাধিকার কর্মী-আব্দুল হামিদ, মাহবুবুর রহমান সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। র‍্যালির শুরুতে বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন প্রধান অতিথি ও দুদক কর্মকর্তারা।

পরে দূর্ণীতির বিরুদ্ধে জনসচেনতা আনতে ব্যান্ডের তালে তালে জাকজমক ভাবে র‍্যালি বের করা হয়। র‍্যালিটি বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে শুরু করে বেনাপোল বন্দর এবং শহর এলাকা প্রদক্ষিণ করে।

র‍্যালি শেষে বেনাপোল মাধ্যমিক বিদ্যালয় শ্রেণীকক্ষে দুদক কর্তৃক আয়োজিত এক আলোচনা বক্তব্য অনুষ্ঠানে সভাপতির স্বাগতিক বক্তব্য শেষে, উক্ত আলোচনা বক্তব্যে প্রধান অতিথি ফারজানা ইসলাম বলেন, ৯ ডিসেম্বর দুর্ণীতি বিরোধী দিবসের পাশাপাশি নারী জাগরণের পথিকৃত বেগম রকেয়া দিবস আজ। এর আগে তিনি শার্শা উপজেলা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত “বেগম রোকেয়া দিবস’ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে সেখানকার উদ্বৃতি দিয়ে বলেন, সুশাসন এবং গণতন্ত্র রক্ষায় নারী জাগরণের পথিকৃৎ বেগম রোকেয়ার কর্ম ও আদর্শ সামনে রেখে আমরা সমাজ থেকে দুর্ণীতি রোধ করতে পারি। অনুষ্ঠানে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, সে সময় মুসলিম সমাজে মেয়েদের লেখাপড়া শেখানোর কোন প্রচলন ছিল না। তাই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকলেও পরিবারের বড় ভাই, বোনের কাছে সব শিক্ষাই নিয়েছিলেন। একজন  সমাজ সংস্কারক হিসেবে তিনি ব্যাপক পরিচিত লাভ করেন।

এ সময় প্রধান অতিথি আরও বলেন, তাই সমাজ থেকে দুর্ণীতি মুক্ত করতে নিজেদের মধ্যে পরিবর্তন আনতে হবে। নিজেকে দুর্ণীতি থেকে দুরে রাখতে পারলে সমাজ থেকে দুর্ণীতি মুক্ত হবে বলে তিনি মনে করেন। নিজ অফিস কার্যালয়ের স্বচ্ছতার কথা তুলে ধরে বলেন- ঘুষ,অবৈধ সম্পদ অর্জন,অর্থপাচার,ক্ষমতার অপব্যবহার এবং সরকারী সম্পদ ও অর্থ আত্মসাৎ থেকে আমাদের প্রত্যেককে সতর্ক থাকতে হবে। তবেই না আমরা বঙ্গবন্ধু’র স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশকে দুর্ণীতি মুক্ত করে গড়ে তুলতে পারবো।