• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন

যশোরের শার্শার গোগা বাজারে অফিস ঘর দখল করাকে কেন্দ্র করে সাবেক চেয়ারম্যাসহ আহত-৫


প্রকাশের সময় : মে ১৬, ২০২৪, ১১:২১ অপরাহ্ন / ১২
যশোরের শার্শার গোগা বাজারে অফিস ঘর দখল করাকে কেন্দ্র করে সাবেক চেয়ারম্যাসহ আহত-৫

আজিজুল ইসলাম, যশোরঃ যশোরের শার্শা উপজেলার গোগা বাজারে আওয়ামীলীগের অফিস দখল করাকে কেন্দ্র করে গোগা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান তবিবুর রহমানের সমর্থকদের হামলায় গোগা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ সহ ৫ জন আহত হয়েছেন।

বুধবার (১৫ মে) রাত ৯ টার দিকে গোগা বাজারে হামলার শিকার হন, গোগা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও গোগা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুর রশিদ (৬০),কালিয়ানি গ্রামের আফিল উদ্দীনের ছেলে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দীন (৪৪),গোগা গ্রামের জয়নালের ছেলে জুলফিকার আলী ভুট্রো (৪০),একই এলাকার নুর ইসলামের ছেলে আব্দুল ওহাব (৪৫) ও ইদ্রিস আলী (৪৫)। আহতদের উদ্ধার করে রাতেই শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ জানান, তিনি তার লোকজনসহ আহত জসিমের দোকানে বসে ছিলেন। এসময় ইউপি সদস্য তরিকুল ইসলাম , বাবুল মেম্বর, শাহ আলম , সাহেব আলী সহ আরো ১০/১২ জন এসে লাঠি ও দেশিয় অস্ত্র নিয়ে তাদের উপর আতর্কিত হামলা চালায়। এতে তিনিসহ ৫/৬ জন আহত হন।

এ ব্যাপারে গোগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তবিবুর রহমান বলেন, গোগা ফুটবল কমিটির একখন্ড জমির ওপর ২০০৬ সালে স্থানীয় আওয়ামী লীগ অফিসঘর নির্মান করেন। গোগা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রশীদ দ্বীতিয়বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে অফিস ঘরটি নিজে দখল নিয়ে ভাড়া দেয়। ২০২১ সালে তবিবুর রহমান চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর স্থানীয় আওয়ামী লীগ দোকানঘর দখল করে ছাত্রলীগের অফিস হিসেবে ব্যাবহার করতে থাকে। হঠাৎ গত ১৫ মে বুধবার রাতে আব্দুর রশিদ ও তার ছেলে সহ বেশ কয়েকজন মিলে দোকানের তালা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করলে আওয়ামী লীগ কর্মীদের সাথে রশিদের কথা কাটাকাটি হয়। এসময় অনাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে বলে চেয়ারম্যান স্বীকার করেন। তবে তিনি এদিন এলাকায় ছিলেননা বলে জানান।

সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার(নাভারন সার্কেল) নিশাত আল নাহিয়ান জানান, ‘এ ঘটনায় রাতে শার্শা থানায় একটি মামলা হয়েছে এবং ঘটনার সাথে জড়িত একজনকে আটক করা হয়েছে। গোগা ও ভুলোট এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকা থমথমে থাকলেও পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে আছে।