• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৪৩ অপরাহ্ন

মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ে কৃষি জমি নষ্ট করে বসানো হয়েছে ড্রেজার পাইপ : থানায় অভিযোগ


প্রকাশের সময় : মার্চ ১৭, ২০২৪, ১:০৬ অপরাহ্ন / ২৪
মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ে কৃষি জমি নষ্ট করে বসানো হয়েছে ড্রেজার পাইপ : থানায় অভিযোগ

মতিউর রহমান রিয়াদঃ মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলা কনকসার ইউনিয়ন মশদগাও সোসাইটি পশ্চিম পাশে কৃষকের ধান ক্ষেত নষ্ট করে অবৈধ ড্রেজার পাইপ বসিয়ে জমি ভরাট বানিজ্যে লিপ্ত স্থানীয় প্রভাবশালী মানিক ঢালী গং। এ বিষয়ে দেখার কেউ নেই, কৃষকরা কথা বললে দেয়া হচ্ছে হুমকি, করা হচ্ছে মারপিট।তবে উপজেলা প্রশাসন সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন ড্রেজার বানিজ্য বন্ধের। এরই মধ্যে উপজেলা কয়েক স্থানে অভিযান চালিয়ে ড্রেজার পাইপ উচ্ছেদ করা হয়েছে।

১৬ মার্চ শনিবার দুপুরে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়। উপজেলা কনকসার ইউনিয়ন মশদগাও সোসাইটির পশ্চিম পাশে ধানক্ষেতের উপর দিয়ে বাঁশের খুঁটি ব্যবহার করে অবৈধ ড্রেজার পাইপ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। পদ্না নদীর পাড় ঘেঁষে লৌহজং বাজার পাকা ব্রীজ নিচ দিয়ে রাসেদ শেখ এর দোকান নিচ দিয়ে দোকান ও রাস্তা বোরিং করে পাইপ নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পাইপটি কনকসার উত্তর দিক দিয়ে কৃষি জমির (ধানক্ষেতের) উপর দিয়ে দক্ষিণে একটি পকেটে গিয়ে পাইপ থেমে আছে। সম্ভাব্য রাতে বালি ফেলানো হবে এই স্থানে।

কৃষক মোঃ চাঁনমিয়া মাদবর বলেন, আমি ১২ হাজার টাকা দিয়ে ক্ষেত রেখে ধান বুনে ছিলাম। আমার ধানক্ষেতের উপর দিয়ে পাইপ বসিয়ে কৃষি জমি ধান নষ্ট করায় আমি জমিতে গিয়ে প্রতিবাদ করলে আমাকে গলাধাক্কা ও গায়ে হাত দেয় । পরে আমি থানায় গিয়ে আমাকে মারধর ও ধানক্ষেত নষ্ট বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক কৃষক এর অভিযোগ মো. মানিক ঢালী পিতাঃ মৃত মুনসুর ঢালী, তার সাথে ড্রেজার বাণিজ্যে অংশীদার, মিরাজ খান, পিতা বাবুল খান, মো. আরিফ খান পিতাঃ শহীদ খান সহ আরো ৬/৭ জনের এই বানিজ্য। তারা গতকাল এক কৃষক ধান ক্ষেতের উপর দিয়ে পাইপ নেয়, এ বিষয়ে প্রতিবাদ করায় এক কৃষককে মারধর করে। পরে সে লৌহজং থানায় লিখত অভিযোগ করেছেন বলে শুনেছি ।

অবৈধ ড্রেজার পাইপ বসিয়ে বাণিজ্যকারী মানিক ঢালী বলেন। কৃষকের ধানক্ষেতের কোন ক্ষতি হবে না। যদি ক্ষতি হয় আমি তা পূরণ করে দেব। তার কাছে জানতে চাওয়া হয় যে ড্রেজার বাণিজ্য অবৈধ আপনি জানেন কি? তিনি বলেন জানি তবে কি করবো কাজের অভাব।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাকির হোসেন বলেন, অবৈধ ড্রেজার পাইপ কনকসারে কোথায় তা আমার জানা নেই। বিষয়টি আপনাদের মাধ্যমে জানতে পারলাম। আমি অফিস থেকে লোক পাঠিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।কৃষকের কাজের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে ধানক্ষেত দিয়ে ড্রেজার পাইপ বসিয়ে কাজ করার কোন সুযোগ নেই। খুব শীঘ্রই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।