• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৫৮ অপরাহ্ন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক মোড়ক উন্মোচিত ‘চিঠিপত্রঃ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ বইয়ের সম্পাদনা করেছেন গোপালগঞ্জের কৃতি সন্তান হাবিবুর রহমান


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ৫, ২০২৩, ৪:৪৩ অপরাহ্ন / ৩৮
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক মোড়ক উন্মোচিত ‘চিঠিপত্রঃ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ বইয়ের সম্পাদনা করেছেন গোপালগঞ্জের কৃতি সন্তান হাবিবুর রহমান

কে এম সাইফুর রহমান গোপালগঞ্জঃ অতিরিক্ত আইজিপি হাবিবুর রহমান সম্পাদিত ‘চিঠিপত্র: শেখ মুজিবুর রহমান’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই বইয়ের ইংরেজি সংস্করন ‘লেটারস অব শেখ মুজিবুর রহমান’-এর মোড়কও উম্মোচন করেছেন তিনি।

রাজধানীর রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে ‘পুলিশ সপ্তাহ-২০২৩’-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী বই দুটোর মোড়ক উম্মোচন করেন। এই বই দুটো সম্পাদনা করেছেন গোপালগঞ্জের কৃতি সন্তান, ট্যুরিস্ট পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি হাবিবুর রহমান বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. এনায়েত করিম।

কারাগার থেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লিখিত পত্রাবলী নিয়ে এই বই দুটোর সংকলন করা হয়েছে।

‘পুলিশ সপ্তাহ-২০২৩’ -এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি, স্বরাষ্ট্র সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, পুলিশের মহাপরিদর্শক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন, পুলিশের সাবেক আইজিপি ও সৌদি আরবে বর্তমানে রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োজিত জাবেদ পাটোয়ারী, অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন) কামরুল আহসান, ট্যুরিস্ট পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি হাবিবুর রহমান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পত্নী লুৎফুল তাহমিনা খান এবং আইজিপি পত্নী ডা. তৈয়বা মুসাররাত জাঁহা চৌধুরী সহ পুলিশের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, পুলিশের চাকরির পাশাপাশি সাংবাদিকতা, লেখালেখি ও নানা ধরনের সামাজিক কার্যক্রমে সক্রিয় ছিলেন অতিরিক্ত আইজিপি হাবিবুর রহমান বিপিএম (বার), পিপিএম (বার)। এর আগে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালকে নিয়ে “নন্দিত” স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খান’ বইয়ের সম্পাদনা করেন।

“মুক্তিযুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ” নামে তার গ্রন্হিত আরেকটি বইয়ে প্রথমবারের মতো বিস্তারিত উঠে আসে একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের ভূমিকা। ২০১৮ সালে প্রকাশিত বইটি সম্পাদনায় মুন্সিয়ানাও দেখিয়েছেন হাবিবুর রহমান। এছাড়াও হাবিবুর রহমানের গবেষণাধর্মী গ্রন্থ ” ঠার ” আলোচিত। এই বইয়ে তিনি বেদে সম্প্রদায়ের বিলুপ্ত প্রায় ভাষা নিয়ে কাজ করেছেন।

১৯৬৭ সালে গোপালগঞ্জের চন্দ্র দিঘলিয়া গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম নেওয়া হাবিবুর রহমান ১৭তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারে যোগ দেন। এই পুলিশ কর্মকর্তা বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সফলভাবে পালন করেছেন। পেশাগত সাফল্য তাকে আজ নিয়ে গেছে ঈর্ষণীয় অবস্থানে।

২০১৯ সালের ১৬ মে হাবিবুর রহমান ঢাকা রেঞ্জের উপ- মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) হিসেবে দায়িত্ব পান। তার আগে তিনি পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (প্রশাসন) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। গেল বছরের ১০ অক্টোবর তিনি অতিরিক্ত আইজিপি পদে পদোন্নতি পান এবং ট্যুরিস্ট পুলিশ প্রধানের দায়িত্ব নেন।

কর্মক্ষেত্রে ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে হাবিবুর রহমান তিনবার বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) ও দুইবার রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) পেয়েছেন। তাছাড়া সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষ, বেদে সম্প্রদায় ও তৃতীয় লিঙ্গের মানুষকে নিয়ে তার কাজ দেশজুড়ে ব্যাপক প্রশংসিত হয়।