• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:৫৮ পূর্বাহ্ন

ঢাকার উত্তরায় সাংবাদিক নামধারী হলুদ সাংবাদিকের দৌরাত্ন বৃদ্ধি 


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৯, ২০২০, ১:১১ পূর্বাহ্ন / ৩৪৬
ঢাকার উত্তরায় সাংবাদিক নামধারী হলুদ সাংবাদিকের দৌরাত্ন বৃদ্ধি 

বিশেষ প্রতিবেদক : রাজধানীর উত্তরায় কতিপয় ভুঁইফোড় হলুদ সাংবাদিকের আনা-গোনা বেড়েই চলছে। নামে বেনামে থাকা কিছু অনলাইন নিউজ পোর্টালসহ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার নামধারী কথিত সাংবাদিকরা গলায় কার্ড ঝুলিয়ে নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে দীর্ঘ দিন যাবত সু-কৌশলে প্রকাশ্যে চাঁদাবাজী করে আসছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরেজমিনে ঘুরে এমনি তথ্য পাওয়া যায়, রাজধানীর উত্তরার বিভিন্ন সেক্টরের স্থায়ী বাসিন্দা ও সাধারন মানুষের মুখে। উত্তরা ৭নং সেক্টরের এস এম ট্রেডিং নামক একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মোটা অংকের চাঁদা দাবী করে আসছিল কথিত নামধারী সাংবাদিক মোঃ সামিউল হক ও মকবুল। তারা নিজেদেরকে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও অনলাইন পোর্টাল এর সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে এস এম ট্রেডিং এ ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে।

উল্লেখিত প্রতিষ্ঠানের ভাইস চেয়ারম্যান পলাশ দাবীকৃত চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে গত ২০ অক্টোবর মঙ্গলবার কথিত হলুদ সাংবাদিক সামিউল হক ও মকবুলের নেতৃত্বে অজ্ঞাত ১৫ থেকে ২০ জন লোক সঙ্গে নিয়ে এস এম ট্রেডিং এর ভাইস চেয়ারম্যান পলাশের উপর তার নিজ অফিসের নিচে অতর্কিত ভাবে হামলা চালায় কথিত সাংবাদিক চাঁদাবাজ সামিউল হক ও মকবুলসহ তার সহযোগীরা। অতর্কিত এ হামলার ঘটনায় উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি চাঁদাবাজীর মামলা হয়েছে যার নং-৩২। এসব নামধারী সাংবাদিক ও চাঁদাবাজদের নামে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় চাঁদাবাজীসহ মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা গেছে।

উক্ত মামলাটির বিষয়ে ২৫ অক্টোবর রবিবার দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল পত্রিকায় “এস এম ট্রেডিং অফিসে চাঁদার জন্য হামলা ও থানায় মামলা!” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হলে দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মোখলেছুর রহমান মাসুমকে তার মানহানী ও সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য সোস্যাল মিডিয়া ফেসবুক ও কিছু অনলাইন নিউজ পোর্টালে মিথ্যা ভিত্তিহীন ও বানোয়াট কথা-বার্তা লিখে অপপ্রচার চালাতে মরিয়া হয়ে উঠে পরে লেগেছে উক্ত কথিত সাংবাদিক ও চাঁদাবাজরা। বিষয়টি নিয়ে দৈনিক আজকের আলোকিত পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক মোখলেছুর রহমান মাসুম বলেছেন, যারাই আমার নামে এ সকল মিথ্যা অপ-প্রচার চালাচ্ছে, তাদের সকল ডকুমেন্ট সংগ্রহ করে ওই সব কথিত সাংবাদিক ও চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং তা পক্রিয়াধীন। সরেজমিনে ঘুরে আরো জানা যায়, নামধারী হলুদ সাংবাদিক সামিউল হক ও মকবুলের সঙ্গীদের চাঁদাবাজীতে অতিষ্ট উত্তরার বিভিন্ন ব্যবসায়ী।

সূত্রে জানা যায়, ছোট বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, কল-কারখানা, বিভিন্ন অফিস, ফুটপাতের দোকান ও চায়ের টং দোকানদারও এদের চাঁদাবাজীর হাত থেকে রক্ষা পায়নি। এমতাবস্থায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে সাধারন মানুষের ভাষ্য, উক্ত চাঁদাবাজদের গ্রেফতার করে মানুষের জনমনে সঞ্চার সৃষ্টি করা হোক তা না হলে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা হারাবে সাধারন মানুষ।

উক্ত ঘটনায় মামলা হওয়ার পর দৈনিক আমার প্রাণের বাংলাদেশ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক আব্দুল্লাহ-আল-মামুন তার পত্রিকায় জড়িত থাকা সাংবাদিকদের বহিঃস্কার করে দিয়েছে এবং সম্পাদক ও প্রকাশক আবদুল্লাহ-আল-মামুন এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।