• ঢাকা
  • বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:০৪ অপরাহ্ন

টাউন জৈনকাঠীতে সিডিসি-এর সঞ্চয় হস্তান্তর করেন কাউন্সিলর নিজামুল হক নিজাম


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ২৪, ২০২৪, ৯:১৭ অপরাহ্ন / ৩১
টাউন জৈনকাঠীতে সিডিসি-এর সঞ্চয় হস্তান্তর করেন কাউন্সিলর নিজামুল হক নিজাম

সোহেল মোল্লা, পটুয়াখালীঃ (UNDP) সিডিসি-এর আওতায় টাউন জৈনকাঠীর ২ টি সিডিসি-এর ৪৩১ জন সদস্য ২২ দলের মোট ৫ লক্ষ ৩৯ হাজার ৩২০ টাকা সঞ্চয় হস্তান্তর করা হয়েছে। এ সিডিসি-এর সভাপতি পৌরসভার ১ নং কাউন্সিলর নিজামুল হক নিজাম এ টাকা হস্তান্তর করেন। বুধবার বিকেল ৪ টার সময় সেরআলী সরদার বাড়ির উঠানে আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে এ সঞ্চয় হস্তান্তর করা হয়েছে।

উওর জৈনকাঠীর দুটি সিডিসি-এর ১ টিতে ১২ দলের মোট ৩ লক্ষ ৯১ হাজর ৭৮০ টাকা সঞ্চয় যার ক্যাশিয়ার রুবিনা আক্তার ও ১০ দলের ১৯১ জন সদস্যের ১লক্ষ ৪৭ হাজার ৫৪০ টাকা সঞ্চয় যার ক্যাশিয়ার মানছুরা আক্তার। সর্বমোট ৪৩১ জনের ৫ লক্ষ ৩৯ হাজার ৩২০ টাকা সদস্যদের হস্তান্তর করা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন,(UNDP) সিডিসি-এর কর্মকর্তা (সিও)-পুষ্প বৈরাগী, (সিএফ)- শিউলি ও স্নেদা, (এসিনিএফ)- বেবী ও আসমা সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও গণমাধ্যমকর্মী প্রমুখ।

সিডিসি মাত্র ২০ টাকা সঞ্চয় জমা নিয়ে যাত্রা শুরু করে। পাঁচ বছরের ৪ বছর ৬ মাসে তাদের সফলতা ব্যাপক। সিডিসি-এর আওতায় রাস্তাঘাট নির্মান, টিউবওয়েল, শিক্ষা ভাতা, ব্যাবসায়ী ভাতা, পুষ্টি সহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পেয়েছে সদস্যরা। সাড়ে চার বছরে মোট ৬২ লক্ষাধিক টাকার বরাদ্দ দিয়েছে (সিডিসি)। বর্তমানে (সিডিসি) সরকারি রেজিস্ট্রার ভুক্ত হয়েছে। আগামীতে সদস্যদের সুবিধার্থে নানান কর্মসূচি থাকবে এবং প্রত্যেক সদস্যকে আর্থিক সহায়তা প্রদানের আওতায় এনে কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্য নিয়ে কাজ করবে (সিবিসি).

সিডিসি-এর সদস্যরা বলেন, কাউন্সিলর নিজামুল হক নিজাম ভাইয়ের জন্য আমার ১ নং ওয়ার্ডবাসী ধন্য। তাকে আমরা বিশ্বাস করি সে কখনো আমাদের বিশ্বাসের অমর্যাদা করেনি। আজ (সিডিসি) এর যত সুবিধা রাস্তা ঘাট নির্মাণ, টিউবটা সহ বিভিন্ন আর্থিক ভাতা ও সঞ্চয় টাকা হাতে পাওয়ার একমাত্র মাধ্যম কাউন্সিলর নিজাম ভাই তার জন্য সব সময় দোয়া ও শুভকামনা রইলো।

এ সময় কাউন্সিলর নিজামুল হক (নিজাম) সকল জনগণের সার্থে আগামীতে আরও ভালো কিছু করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তিনি বলেন, জনগন আমাকে বিশ্বাস করে তাদের কষ্টের অর্জিত টাকা (সিডিসি) এর কাছে জমা রেখেছে আজ সকলের খুশি আর তাদের কষ্টের অর্জিত সঞ্চয় টাকা তাদের হাতে তুলে দিতে পেরেছি এতেই আমি নিজেকে গর্বিত মনে করি। জনগন তাদের মুল্যবান ভোটে আমাকে দুইবার কাউন্সিলর হওয়ার সুযোগ দিয়েছেন। আমি আমার সাধ্যমতো সেবা ও উন্নয়ন মুলক কাজ করেছি।আগামী ৯’মার্চ পটুয়াখালী পৌরসভা নির্বাচনের সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। তাই জনগন যদি আমাকে চায় আমি নির্বাচন করবো তাদের যাকে ভালো লাগে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে। জনগনের রায় আমি মাথা পেতে মেনে নিবো। এসময় তিনি আরও বলেন, একটি কুচক্রী মহল কানাকানি করছে জনগণের জমানো সঞ্চয় টাকা নিয়ে আজ তাদের মুখে চুনকালি পরলো। আমি কারো সমালোচনা করবোনা পারলে জনগনের সেবার সার্থে আগামীতে আরও উন্নয়ন মুলক কাজ করে যাবো এটাই আমার নির্বাচনী একমাত্র প্রতিশ্রুতি।