• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১১:৩২ পূর্বাহ্ন

টঙ্গী মডেল থানার চাঞ্চল্যকর শিল্পী আক্তার শিলা হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করল পিবিআই গাজীপুর


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২৬, ২০২২, ৪:০৬ অপরাহ্ন / ২৭
টঙ্গী মডেল থানার চাঞ্চল্যকর শিল্পী আক্তার শিলা হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করল পিবিআই গাজীপুর

মোঃ রাসেল সরকার,ঢাকাঃ টঙ্গী মডেল থানার মামলা নং-৩৪, তারিখ-২৩/০৯/২০১৬ খ্রিঃ, ধারা-৩০২ পেনাল কোড। প্রায় সাড়ে ছয় বছর পর জিএমপি মহানগর টঙ্গী পূর্ব থানাধীন উত্তর দত্তপাড়া টেক বাড়ী গ্রামস্থ বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যকর শিল্পী আক্তার শিলা হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন ও আসামী গ্রেফতার করল পিবিআই গাজীপুর।

গ্রেফতারকৃত আসামীর নামঃ পিবিআই গাজীপুরের একটি টিম গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে এবং অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে অভিযান পরিচালনা করে মামলার ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত আসামী ১। মোঃ শফিকুল ইসলাম স্বপন(৩২),পিতা-মৃত সিরাজ উদ্দিন,মাতা- আমেনা বেগম,সাং-কমলাপুর,থানা-কালকিনি,জেলা-মাদারীগঞ্জ,এ/পি- লুটিয়ার চালা,গুচ্ছগ্রাম, থানা- জয়দেবপুর, জেলা- গাজীপুরকে ইং-২৫/১২/২০২২ তারিখ রাত্র ০৪.৩০ ঘটিকার সময় গাজীপুর জেলা জয়দেবপুর থানাধীন লুটিয়ার চালা,গুচ্ছগ্রাম এলাকা থেকে গ্রেফতার করে অভিযান শেষে ইং ২৫/১২/২০২২ তারিখ সকাল ০৮.২০ ঘটিকার সময় পিবিআই গাজীপুর কার্যালয়ে হাজির হয়।

ঘটনার সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ অত্র মামলার ভিকটিম শিল্পী আক্তার শিলা(২২),পিতা- সোলেমান,স্বামী- মোঃ শফিকুল ইসলাম স্বপন,সাং- মরিচের চালা,থানা-জয়দেবপুর,জেলা-গাজীপুর গত ইং ১৪/০৯/২০১৬ তারিখে বিকাল অনুমান ০৪.৩০ ঘটিকায় ভিকটিমের খালা বেবী বেগম এর বাড়ী হতে বের হয়। গত ইং ২৩/০৯/২০১৬ তারিখ দুপুর ০২.০০ ঘটিকায় টঙ্গী মডেল থানাধীন উত্তর দত্তপাড়া টেকবাড়ী মৃত আব্দুল রশিদ এর পরিত্যাক্ত বাসার রুম বাহির হতে তালাবদ্ধ এবং রুম হতে দুর্গন্ধ বাহির হইতেছে। স্থানীয় ও আশপাশের লোকজন থানা পুলিশকে সংবাদ দিলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভিকটিম শিল্পী আক্তার শিলার অর্ধগলিত দুর্গন্ধযুক্ত লাশ উদ্ধার করে। এ সংক্রান্তে ভিকটিম শিল্পী আক্তার শিলার খালা বেবী বেগম বাদী হয়ে এজাহার দায়ের করলে সূত্রে বর্ণিত মামলাটি রুজু হয়।

টঙ্গী মডেল থানা পুলিশ হত্যা মামলাটি তদন্ত করেন। মামলাটির রহস্য উদঘাটন না হওয়ায় চুড়ান্ত রিপোর্ট সত্য বিজ্ঞ আদালতে দাখিল করেন। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলাটি পিবিআই কে তদন্তের নির্দেশ প্রদান করেন।

অ্যাডিশনাল আইজিপি পিবিআই জনাব বনজ কুমার মজুমদার. বিপিএম (বার), পিপিএম এর সঠিক তত্ত্বাবধান ও দিক নির্দেশনায় পিবিআই গাজীপুর ইউনিট ইনচার্জ পুলিশ সুপার, জনাব মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান এর সার্বিক সহযোগীতায় মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ) জনাব মোঃ জামাল উদ্দিন মামলাটি তদন্ত করেন।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে, গ্রেফতার কৃত আসামী মোঃ শফিকুল ইসলাম স্বপন ভিআইপি ২৭ নং বাসের হেলপারের কাজ করতেন। ভিকটিম শিল্পী আক্তার শিলার সাথে ঘটনার প্রায় ৫ বছর পূর্বে আসামীর সাথে প্রেমের সম্পর্কের মাধ্যমে বিবাহ আবদ্ধ হয়। ভিকটিমকে বিবাহ করার পর গ্রেফতার কৃত আসামী ভিকটিমসহ টঙ্গীস্থ এরশাদ নগর এলাকায় আসামীর মায়ের ভাড়া বাসাতে বসবাস করতে থাকে। ভিকটিম শিল্পী আক্তার শিলা মাদকসহ বিভিন্ন উৎশৃঙ্খল কর্মকান্ডের সাথে যুক্ত ছিল। এ সকল বিষয় নিয়ে আসামীর সাথে প্রায় ভিকটিমের ঝগড়া বিবাদ হত। পরবর্তীতে আসামীর মা আসামীসহ ভিকটিমকে তার বাড়ী থেকে বের করে দেয়। পরবর্তীতে আসামী এবং ভিকটিম টঙ্গীস্থ দত্তপাড়া টেকবাড়ী মৃত আব্দুল রশিদ এর বাড়ীতে ভাড়াটিয়া হিসাবে বসবাস শুরু করে। ঘটনার দিন অর্থাৎ গত ১৪/০৯/২০১৬ তারিখ রাতে ভিকটিম ও আসামীর মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া হয় এবং ঐ দিন রাত অনুমান ০৪.০০ ঘটিকার সময় ভিকটিম ঘুমিয়ে থাকা অবস্থায় আসামী ভিকটিমের গলা চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে ঘরের দরজা বাহির হতে তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে পিবিআই এর পুলিশ সুপার জনাব মোহাম্মদ মাকছুদের রহমান বলেন এটি একটি হত্যা মামলা। মামলাটি থানা পুলিশ দীর্ঘদিন তদন্ত করে তদন্ত শেষে চুড়ান্ত রিপোর্ট সত্য বিজ্ঞ আদালতে দাখিল করলে বিজ্ঞ আদালত স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলাটি পিবিআই গাজীপুর জেলাকে তদন্তের নির্দেশ প্রদান করলে ঘটনার সহিত সকল তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। মূলত স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া বিবাদকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকান্ডটি সংগঠিত হয়।

আসামী মোঃ শফিকুল ইসলাম স্বপনকে গ্রেফতার পূর্বক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ইং ২৫/১২/২০২২ তারিখ বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হলে উক্ত আসামী নিজেকে ভিকটিম শিল্পী আক্তার শিলা হত্যা কান্ডের সাথে জড়িয়ে এই হত্যাকান্ডের বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা করে বিজ্ঞ আদালতে ফৌঃ কাঃ বিঃ আইনের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।