• ঢাকা
  • শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:৫০ অপরাহ্ন

জাবেদ-মোয়াজ্জেম সিন্ডিকেটের বেসামাল অপকর্ম


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ২৫, ২০২২, ৫:২৬ অপরাহ্ন / ৪৩
জাবেদ-মোয়াজ্জেম সিন্ডিকেটের বেসামাল অপকর্ম

মোঃ রাসেল সরকার,ঢাকাঃ বাংলাদেশ ইলেকট্রিক্যাল মার্চেন্ডাইজ ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশনের (বীমা) সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন এসোসিয়েশনের একটি প্যাড চুরি করে নিজেকে সিনিয়র সহ-সভাপতি উল্লেখ করে অপর একটি বানিজ্যিক সংগঠন বাংলাদেশ ইলেকট্রিক্যাল ক্যাবলস ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশনের বিরুদ্ধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। একটি সংগঠনের প্যাড ব্যবহারের সুনির্দিষ্ট বিধি-বিধান থাকে। সংগঠনের সভাপতির অনুমোদন ছাড়া অন্য কেউ প্যাড ব্যবহারের অধিকার রাখে না। কিন্তু মোয়াজ্জেম হোসেন বীমার অফিস থেকে প্যাড চুরি করে আরেকটি সংগঠনের বিরুদ্ধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় অভিযোগ দেওয়ার বিষয়টি প্রকাশিত হওয়ায় বীমার সদস্যদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। বিষয়টি সংগঠনের গঠনতন্ত্র বিরোধী হওয়ায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বীমার সদস্যরা সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেও সভাপতি কোন প্রকার আইনগত ব্যবস্থা না নেয়ায় এসোসিয়েশনের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ব্যাপক অনুসন্ধানে জানা গেছে, মোয়াজ্জেম হোসেন বাংলাদেশ ইলেকট্রিক্যাল মার্চেন্ডাইজ এন্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশনের সহযোগি সদস্য। মূলত সে কখনো বীমার সিনিয়র সহ-সভাপতি ছিলেন না তারপরেও নিজেকে বীমার সিনিয়র সহ-সভাপতি পরিচয় দিয়ে বাংলাদেশ ইলেকট্রিক্যাল ক্যাবলস ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশনের উপর প্রশাসক নিয়োগ করার আবেদন জানিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে তিনি যেই প্যাড ব্যবহার করেন সেটি ছিল বাংলাদেশ ইলেকট্রিক্যাল মার্চেন্ডাইজ এন্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশনের (বীমার) প্যাড। একজন সদস্যের পক্ষে এভাবে প্যাড ব্যবহার করার কোন বিধি-বিধান এসোসিয়েশনে নেই। তারপরেও মোয়াজ্জেম হোসেন কি ভাবেই প্যাড ব্যবহার করলেন সেই বিষয়ে নানা প্রশ্ন সামনে চলে আসে। মূলত বাংলাদেশ ইলেকট্রিক্যাল ক্যাবলস ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশনকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য মোয়াজ্জেম হোসেন এই অপকর্মটি করেন। অফিসিয়াল কাজে প্যাড ব্যবহারে একমাত্র অধিকারী ব্যক্তি সভাপতি ও তার মনোনিত ব্যক্তি। সভাপতি নিজেও তার ব্যক্তিগত কাজে সংগঠনের প্যাড ব্যবহারের অধিকার রাখে না। অনুমোদন ছাড়া মোয়াজ্জেমের পক্ষে তো প্রশ্নই আসেনা। মোয়াজ্জেম প্যাড চুরি করে নিয়েছে অথবা কেউ মোয়াজ্জেমকে প্যাড ব্যবহারের সুযোগ করে দিয়েছে বলে দাবী করেন বীমার সদস্যরা।

কারণ এই বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর বীমার বর্তমান সভাপতি আফতাব জাবেদের কাছে বীমার সদস্যরা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু বীমার কর্তৃপক্ষ সেই অভিযোগ গ্রহন করেন নাই। পরে অভিযোগকারী সদস্যরা ডাকযোগে অভিযোগ প্রেরণ করেন। এতে বীমার সদস্যদের মধ্যে চরম ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। একজন সদস্যের ব্যক্তিগত প্রয়োজনে সংগঠনের প্যাড ব্যবহারের কোন সুযোগ নেই অবগত থাকার পরেও সভাপতি আফতাব জাবেদ কেন মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি এমন প্রশ্নেই প্রমাণিত হয় সভাপতি আফতাব জাবেদ নিজেই স্বার্থ হাসিলের জন্য মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনিচ্ছুক। মোয়াজ্জেমকে শাস্তি দিলে থলের কালো বেরিয়ে আসবে। এতে সভাপতি জাবেদের মুখোশ খুলে যাবে। সভাপতি আফতাব জাবেদ সিন্ডিকেটের অনেক পরিচালকই অন্যান্য সদস্যদের এবিষয়ে অভিযোগ দায়ের করতে নিষেধ করেছেন। তবে বীমার অনেক সদস্যই বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ দিবেনা বলে বদ্ধপরিকর। তাদের দাবী মোয়াজ্জেম প্যাড চুরি করেছে, তাই চুরির বিচার হতে হবে অথবা সভাপতি আফতাব জাবেদকে মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়ার বিষয়ে সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দিতে হবে। কারন এটা সংগঠনের সুনাম নষ্ট করেছে। এই বিচারে সভাপতির অনীহা নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে।

বাংলাদেশ ইলেকট্রিক্যাল মার্চেন্ডাইজ এন্ড ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশনের সদস্য মোঃ মনির হোসেন বলেন, সভাপতির অনুমোদন ছাড়া কারোর পক্ষে প্যাড ব্যবহার করার অধিকার নেই। সংগঠনের প্যাড ব্যবহার করে কেউ নিজের ব্যক্তিগত কাজ করতে পারেন না। মোয়াজ্জেম হোসেন কিভাবে কাজটি করেছে তা তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু কর্তৃপক্ষ অভিযোগটি গ্রহণ করে নাই। পরে ডাকযোগে পাঠিয়েছি। কিন্তু এবিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করার কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে কর্তৃপক্ষের কেন এমন অনীহা তা আমার বোধগম্য নয়।

এ ব্যাপারে বীমার সভাপতি আফতাব জাবেদ বলেন, কেউ অভিযোগ দায়ের করলে বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।