• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:০৮ অপরাহ্ন

চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানী-রপ্তানিকারক গ্রুপের নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান


প্রকাশের সময় : মার্চ ৫, ২০২৩, ৮:২৬ অপরাহ্ন / ৪১
চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দর আমদানী-রপ্তানিকারক গ্রুপের নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জঃ বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সোনামসজিদ স্থল বন্দরের আমদানী ও রপ্তানীকারক গ্রুপের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছে সবুজ ব্যবসায়িক স্মার্ট প্যানেল। শনিবার রাতে কাজী মো. শাহাবুদ্দীন মাওলানা মো. মামুনুর রশীদ প্যানেলর ১৫ জন এবং সবুজ ব্যবসায়ী স্মার্ট প্যানেলের ২জন নির্বাচিত ঘোষণা করে ফলাফল ঘোষণা করেন,নির্বাচন পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট গোলাম মোস্তফা।

ফলাফল ঘোষণার পর নির্বাচনে কারচুপি,জাতীয় পরিচয়পত্র ও লাইসেন্স ছাড়াই ভুয়া ভোটার দিয়ে ভোট প্রদান করাসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ আনেন সবুজ ব্যবসায়ী স্মার্ট প্যানেলের প্রার্থীরা।

সবুজ ব্যবসায়ী স্মার্ট প্যানেল থেকে প্রজাপতি প্রতীকের প্রার্থী মেসার্স মানিক ইন্টারন্যাশনালের স্বত্বাধিকারী মো.যুবরাজ আলম মানিক বলেন, নির্বাচনের একটি মৌলিক বিষয় হলো ভোট প্রদানের পর হাতের আঙুলে রংয়ের চিহ্ন দেয়া। কিন্তু ভোট প্রদানের পরেও অনেক ভোটারের আঙুলে তা দেয়া হয়নি। এমনকি আমাদের এজেন্টদের ভেতরে মোবাইল রাখতে দেয়া হয়নি। অথচ আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বিদের এজেন্টরা ভেতরে মোবাইল নিয়ে ছিল।

এই প্যানেল থেকে আনারস প্রতীকের আরেক প্রার্থী ও মেসার্স জোহরা এন্টার প্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো. নূর আমিন জানান, নির্বাচনে ভোটারের ছবি, লাইসেন্স ও জাতীয় পরিচয়পত্র ও আমদানি নিবন্ধন লাইসেন্স ছাড়াই গণহারে ভুয়া ভোট প্রদান করা হয়েছে। তাই এই নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় নির্বাচন আয়োজনের দাবি জানায়। নির্বাচনে মোট ভোট পড়েছে ১৭৪। এরমধ্যে বৈধ ভোটের সংখ্যা ১৬৬। সেই হিসেবে সর্বমোট ভোট হবে ২৮২২। কিন্তু ২ ভোট কম করে ২৮২০ পাওয়া যাচ্ছে। তাই আমরা পুরো প্যানেল থেকে ভোট বর্জন করে পুনরায় অবাধ নিরপেক্ষ সুষ্ঠ নির্বাচনের দাবি করছি।

ঘোষিত ফলাফলে বিজয়ী কাজী মো. শাহাবুদ্দীন-মাওলানা মো. মামুনুর রশীদ প্যানেলের মেসার্স হায়দার এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আলহাজ্ব মাওলানা মামুনুর রশীদ বলেন,সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আমদানী ও রপ্তানীকারকদের স্বার্থে যা যা করা দরকার,ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে সোনামসজিদ স্থলবন্দরের রাজস্ব বৃদ্ধির জন্য তার সব কিছুই করবো ইনশাআল্লাহ।

এ বিষয়ে নির্বাচন পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট গোলাম মোস্তফা বলেন,নির্বাচনে ১৭ প্রার্থীকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। এদের মধ্য থেকেই সভাপতি সাধারণ সম্পাদক সহ অন্যান্য পদ নির্বাচন করা হবো। নিয়ম অনুযায়ী, তিন দিনের মধ্যে কোন অভিযোগ থাকলে আপিল করতে পারবেন। কিন্তু রবিবার (০৫ মার্চ) দুপুর সাড়ে তিনটা পর্যন্ত নির্বাচন নিয়ে কেউ কোন অভিযোগ করেননি।

নির্বাচনে ঘোষিত ফলাফলে মেসার্স হায়দার এন্টার প্রাইজের স্বত্বাধিকারী আলহাজ্ব মাওলানা মামুনুর রশীদ ছাতা প্রতীকে সর্বোচ্চ ১১৪ ভোট পেয়ে প্রথম হয়েছেন,মেসার্স আল মদিনা ট্রেডিংয়ের স্বত্বাধিকারী মো. দেলোয়ার হোসেন চশমা প্রতীকে ১১২ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন।

এছাড়াও পর্যায় ক্রমে মো.আকতার পেয়েছেন ঘোড়া প্রতীকে ১০৬ ভোট, সাঈদী হাসান কাপ-পিরিচ প্রতীকে ১০৬ ভোট মাসুদ রানা হাত-পাখা প্রতীকে ১০২ ভোট,মোঃ আলমগীর (জুয়েল)সিলিং ফ্যান প্রতিকে ১০১ ভোট, কাজী শাহাবুদ্দীন দোয়াত-কলম প্রতীকে ১০০ ভোট, আসাদুল হক ঘুড়ি প্রতীকে ১০০ ভোট, সাহিনুল ইসলাম গরুর গাড়ি প্রতকে ৯৮ ভোট,শফিকুল ইসলাম তাজেল তাল গাছ প্রতীকে ৯৬ ভোট, আরিফ হোসেন সূর্য প্রতীকে ৯৩ ভোট,রবিউল ইসলাম কবুতর প্রতীকে ৯০ ভোট,মো. লনুর আমিন আনারস প্রতীকে ৮৯ ভোট,মো.জাইদুল ইসলাম হাঁস প্রতীকে ৮৭ ভোট, কামাল আহমেদুজ্জোহা টেবিল ফ্যান প্রতিকে ৮৬ ভোট,যুবরাজ আলম মানিক প্রজাপতি প্রতীকে ৮৫ ভোট, মিজান সাহেব হারিকেন প্রতীক ৮২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

উল্লেখ্য,সোনামসজিদ আমদানি ও রপ্তানি কারক গ্রুপের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে দুইটি প্যানেলে মোট ৩৪ জন ও প্যানেল ছাড়া ৬ জন মোট ৪০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। সোনামসজিদ আমদানী ও রপ্তানিকারক গ্রুপের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে ১৮৭ জন ভোটারের মধ্যে ১৭৪ ভোট প্রদান করে।