• ঢাকা
  • শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:০০ অপরাহ্ন

চট্টগ্রামে চালু হলো বিআরটিসির স্মার্ট স্কুলবাস


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৯, ২০২৩, ২:০২ অপরাহ্ন / ২৩৭
চট্টগ্রামে চালু হলো বিআরটিসির স্মার্ট স্কুলবাস

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রামঃ চট্টগ্রামে চালু হলো বিআরটিসির স্মার্ট স্কুলবাস। এই বাসে উঠা শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির বার্তা পেয়ে যাবেন  অভিভাবকেরা। আরও নানা ধরনের প্রযুক্তি সেবা নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম নগরের সড়কে যাত্রা শুরু করেছে বিআরটিসির স্মার্ট স্কুল বাস। চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের জন্য এই স্মার্ট বাস প্রকল্পের বাস্তবায়ন করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা যায়, ৭৮ আসন বিশিষ্ট বিআরটিসির ১০টি ডবল ডেকার স্মার্ট স্কুল বাসে স্মার্ট টেকনোলজির মধ্যে জিপিএস ট্র্যাকার, আইপি ক্যামেরা, এআই ব্যবহার করে শিক্ষার্থীদের স্কুলে যাতায়াতের ক্ষেত্রে বাসে ওঠা-নামার সময় অভিভাবকের ফোনে স্বয়ংক্রিয় এসএমএস প্রদান, বাসে শিক্ষার্থীদের অবস্থান মনিটরিং, স্কুল টাইমিং সমন্বয়ের মাধ্যমে স্বল্প খরচে স্কুল- কলেজে যাত্রা নিশ্চিত করা হবে।

স্কুল শিক্ষার্থীরা নিজেদের কাছে থাকা স্মার্ট কার্ডের ছোঁয়ায় ভাড়া পরিশোধ করতে পারবে। বিকাশ বা নগদের মতো পরিচিত প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে রিচার্জ করা যাবে এসব স্মার্ট কার্ড গুলোতে।

সোমবার চট্টগ্রাম নগরের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম মাঠ থেকে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে একটি স্মার্ট স্কুল বাস। এ সময় বাসে চট্টগ্রাম নগরীর ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫০ জন শিক্ষার্থী ছিল। তাঁদের প্রত্যেকেই স্মার্ট কার্ড চেপে বাসে ওঠে। মঙ্গলবার সকালে শিক্ষার্থীদের নিয়ে এটি সড়কে চলে। চলতি বছরে বাসগুলোয় প্রত্যেক শিক্ষার্থীর যাওয়া-আসায় খরচ হবে ৫ টাকা করে ১০ টাকা। সোমবার দুপুরে ডিজিটাল হাজিরা যন্ত্রের সামনে স্মার্ট কার্ড চেপে স্মার্ট বাসের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করেন চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. তোফায়েল ইসলাম।

এরআগে স্মার্ট স্কুল বাসের আনুষ্ঠানিক যাত্রা উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, এই উদ্যোগের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা দুশ্চিন্তা মুক্ত হতে পারবেন। এ ছাড়া সড়কে যানজটও অনেক কমে যাবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষাবিদ আবুল মোমেন বলেন, প্রকল্পটি চালু করেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন, তবে এটি রক্ষণাবেক্ষণের দ্বায়িত্ব  শিক্ষার্থীদের। সঠিক রক্ষণাবেক্ষণে এই প্রকল্প দীর্ঘস্থায়ী হবে এবং শিক্ষার্থীরা আরও বেশি লাভবান হবে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল অনুষদের ডিন রাশেদ মোস্তফা, জিপিএইচ ইস্পাতের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলমাস শিমুল, চট্টগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আবদুল মালেক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. সাদি উর রহিম, চট্টগ্রাম নগরের ১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক এবং শিক্ষার্থী ও তাঁদের অভিভাবকেরা।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, আশা করছি এটিকে একটি টেকসই প্রকল্প হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব হবে। নগরের পতেঙ্গা হালিশহর এলাকার শিক্ষার্থীদের কথা মাথার রেখে আরও ১০টি বাস নামানোর পরিকল্পনা রয়েছে।