• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:৩৯ পূর্বাহ্ন

গোপালগঞ্জে সওজ’র নির্বাহী প্রকৌশলীর যোগসাজশে সরকারি ইট পাচারের অভিযোগ


প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৯, ২০২২, ১:৩৬ অপরাহ্ন / ৪৬৪
গোপালগঞ্জে সওজ’র নির্বাহী প্রকৌশলীর যোগসাজশে সরকারি ইট পাচারের অভিযোগ

কে এম সাইফুর রহমান, গোপালগঞ্জঃ গোপালগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির যেন শেষ নেই। একের পর এক দুর্নীতির খবরে বিরক্ত জেলাবাসী। গোপালগঞ্জ সওজ -এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জাহিদ হোসেনের নিয়ম বহির্ভূত কার্যকলাপে সড়ক ভবনের অনেক অফিসার ও কর্মচারীরাও অতিষ্ট। সম্প্রতি সওজ -এর নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ জাহিদ হোসেনের যোগসাজশে এক ঠিকাদার কর্তৃক সড়ক ও জনপথ বিভাগ থেকে নসিমন (ট্রলি) গাড়ী যোগে প্রায় ৩ হাজার পুরাতন ইট পাচারের অভিযোগ উঠেছে ওই নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে।

গত বুধ ও বৃহস্পতিবার দুপুরে ট্রলি গাড়ীতে করে ওই ইট সদর উপজেলার করপাড়া নামক এক এলাকায় পৌঁছে দিতে দেখা যায়। ইটবাহী গাড়ীর ড্রাইভার জানান, সড়ক ও জনপথ থেকে এক ঠিকাদার তার বাড়িতে ইট পৌঁছে দিতে বলেছে। তাই সে গাড়ীর ইট তার বাড়িতে নামিয়ে দেন।

এদিকে এই বিষয়ে প্রথমে সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জাহিদ হোসেনের সাথে প্রতিবেদকের মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, ইট নেওয়ার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না, এমনকি ইট গুলো কোথায় যাচ্ছে তাও তার জানানেই। তবে পরবর্তীতে, তিনি সাংবাদিকদের জানান, সড়ক ভবনের মধ্যে কিছু আবাসিকের সংস্কার কাজ করেছে এক ঠিকাদার। সেখান থেকে বের হওয়া কিছু পুরাতন ইট টেকেরহাট- গোপালগঞ্জ সড়কের মেরামত কাজে তিনি পাঠিয়েছেন।

এদিকে ইট নিয়ে যাওয়া ঠিকাদার নজরুল ইসলাম জানান, ওই পুরাতন ইট তার গ্রামের বাড়ির এলাকার রাস্তার বেশ কিছু জায়গাতে গর্ত হয়ে গেছে। সেখানে সংস্কার করার জন্য ব্যক্তিগত টাকা খরচ করে এক ট্রলি ইট তিনি নিয়েছেন।

অন্যদিকে, সড়ক ও জনপথ বিভাগের কিছু অফিসার ও কর্মচারীরা জানান, নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জাহিদ হোসেন সড়ক ভবনের মধ্যে প্রায় সব ধরনের ঠিকাদারী কাজ টেন্ডারবিহীন তার নিজস্ব ঠিকাদারকে দেন। বিনিময়ে তিনি মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেন। এছাড়া কোন ঠিকাদারের সাহস নেই টেন্ডার বিহীন সরকারি ইট নিয়ে যাওয়ার। এ সবকিছু গোপালগঞ্জ সড়ক ও জনপথ -এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জাহিদ হোসেনের যোগসাজশে হচ্ছে।