• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন

গোপালগঞ্জে ইঁদুর মারার ফাঁদে জড়িয়ে নিহার শিকদার নামে এক কৃষকের মৃত্যু


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ৪, ২০২৩, ৬:১৩ অপরাহ্ন / ১২৪
গোপালগঞ্জে ইঁদুর মারার ফাঁদে জড়িয়ে নিহার শিকদার নামে এক কৃষকের মৃত্যু

কে এম সাইফুর রহমান,গোপালগঞ্জঃ গোপালগঞ্জে ইঁদুর মারার অবৈধ ফাঁদে ব্যবহৃত বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে নিহার রঞ্জন শিকদার (৪৫) নামে এক দরিদ্র কৃষকের অকাল মৃত্যু হয়েছে। এর আগে গত সপ্তাহে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের জলিরপাড়ের কলিগ্রামে ইঁদুর নিধনের অবৈধ ফাঁদে নির্ভসা বৈরাগী নামে আরেক কৃষক প্রাণ হারান।

শুক্রবার কোটালীপাড়া উপজেলার কলাবাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম মাছপাড়া গ্রামে মর্মান্তিক এ ঘটনা ঘটে। নিহত কৃষক একই গ্রামের মৃত গুরুদাস শিকদারের ছেলে। এ ঘটনায় সরেজমিনে গিয়ে পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পশ্চিম মাঝপাড়া গ্রামের মহাদেব সরকারের ছেলে মৃনাল সরকার ধানের বীজ তলায় ইঁদুর মারার অবৈধ বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে রাখেন। শুক্রবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে ওই বীজ তলার পাশ দিয়ে বিলে যাওয়ার সময় ফাঁদে জড়িয়ে ঘটনা স্থলেই নিহার রঞ্জন শিকদার মারা যান। পরে নিহারের নিথর দেহ পড়ে থাকতে দেখে তার পরিবার ও স্বজনদের খবর দেন অন্যরা। নিহার শিকদারের পরিবার গণমাধ্যমকে জানান, চলতি বাংলা বছরের গত কার্তিক মাসের মাঝামাঝি সময়ে ১১ হাজার টাকার বিনিময়ে ওই পুকুরের মাছ ক্রয় করে নিহার শিকদার। পরে পুকুরের মাছ ধরা নিয়ে ওই পুকুরের শরীকদের একাংশের সাথে নিহারের বাক-বিতণ্ডা হয়। তারা নিহারকে দেখে নেওয়ার হুমকি-ধমকিও দিয়েছে বলে জানান পরিবার। সেই জেরে মৃনাল কান্তি সরকার গং -এরা পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকান্ড ঘটিয়ে থাকতে পারে দাবি স্বজনদের। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষে কোটালীপাড়া থানায় মামলা দিতে গেলে পুলিশ তা না নিয়ে অপমৃত্যুর মামলা দিতে বলে। সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনার জোর দাবি জানান নিহতের পরিবার।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ লাশ উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়ে ময়না তদন্ত শেষে নিহারের লাশ তার পরিবারের নিকট লাশ হস্তান্তর করেছে বলে জানাগেছে।

কোটালীপাড়া পল্লী বিদ্যুতের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার সাখাওয়াত হোসেন বলেন, অবৈধ সংযোগের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে।