• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০৩ পূর্বাহ্ন

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় গাছের গুঁড়ি নেওয়াকে কেন্দ্র করে স্কুল ছাত্রকে মারপিট, থানায় অভিযোগ


প্রকাশের সময় : জুলাই ১২, ২০২২, ৩:০৯ অপরাহ্ন / ৯৪
গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় গাছের গুঁড়ি নেওয়াকে কেন্দ্র করে স্কুল ছাত্রকে মারপিট, থানায় অভিযোগ

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধিঃ গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় গাছের গুঁড়ি নেওয়াকে কেন্দ্র করে মনীষ মিস্ত্রী (১৮) নামক এক স্কুল ছাত্রকে মারপিট করে আহত করার অভিযোগ উঠেছে এলাকার একটি প্রভাবশালী মহলের বিরুদ্ধে। সে পূর্ব কোটালীপাড়া ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের (জহরের কান্দি স্কুল) ১০ম শ্রেণির ছাত্র। গত শুক্রবার সকালে উপজেলার কাফুলাবাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, এ্যাডভোকেট দেবাশীষ মিস্ত্রীর নির্দেশে মুকুন্দ মিস্ত্রীর ছেলে মনীষ মিস্ত্রী দিপক ও সোহাগকে সঙ্গে নিয়ে কাটা গাছের গুঁড়ি আনতে যায়। তখন একই গ্রামের নারায়ণ রায় ও তার ছেলেরা মনীষদের ওপর হামলা চালিয়ে তাদেরকে মারপিঠ করে। হামলায় গুরুতর আহত মনীষকে কোটালীপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করে তার স্বজনেরা।

দেবাশীষ মিস্ত্রী জানান, ওই গাছ আমার জায়গায়, আমার গাছ। কিছুদিন পূর্বে নারায়ণ রায় গাছটি কেটে ফেলে রাখে, তাই আমি আমার ভাতিজা মনীষকে গাছটি আনার জন্য পাঠিয়েছিলাম, তখন নারায়ণ গং এরা আমার ভাতিজাকে মারপিট করে।

হাসপাতালে ভর্তি, আহত মনীষ মিস্ত্রী সাংবাদিকদের জানান- দেবাশীষ কাকার নির্দেশে আমরা তিনজন গাছ আনতে যাই, তখন নারায়ণ ও তার ছেলেরা দেশী অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালিয়ে মারপিট করে, আমি এ ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নারায়ণ রায় (৭০) বলেন- জমি জমা নিয়ে পূর্ব থেকে বিবাদ চলে আসছে, মনীষ আমাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়, তখন আমি মনীষকে গাছের ডাল দিয়ে একটি বাড়ি মেরেছি, আমার ছেলেরা কেহ সেখানে ছিলনা।

মনিময় মিস্ত্রী, লক্ষ্মী কান্ত রায়, রিপন দাস, লিটন, মহানন্দ রায়, অনিতা রায় সহ একাধিক এলাকাবাসী সাংবাদিকদের বলেন- নারায়ণ ও তার ছেলেদের অত্যাচারে কিছুদিন পূর্বে হরবিলাষ রায় ও অভিলাস রায় নামে দুটি পরিবার ওই বাড়ী ছেড়ে চলে গেছে, নারায়ণরা বাব-বেটারা মিলে এলাকায় প্রায়ই ত্রাসের সৃষ্টি করে। এ ব্যাপারে মুকুন্দ মিস্ত্রী বাদী হয়ে ৫জনকে বিবাদী করে কোটালীপাড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

কোটালীপাড়া থানার এ.এস.আই মাহাবুব শেখের সাথে যোগাযোগ হলে তিনি বলেন- হাসপাতালে রুগী দেখে এসেছি, ঘটনা সঠিক, তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।