• ঢাকা
  • শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:৩১ অপরাহ্ন

গুগল গাইডিং স্টার স্বীকৃতি পেলেন ৭ বাংলাদেশি


প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ৮, ২০২২, ১২:০৩ অপরাহ্ন / ৬৯
গুগল গাইডিং স্টার স্বীকৃতি পেলেন ৭ বাংলাদেশি

চারঘাট (রাজশাহী) প্রতিনিধিঃ গুগলের অন্যতম পরিষেবা ‘গুগল লোকাল গাইডস’। এই অনলাইন প্ল্যাটফর্মে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অসংখ্য ভলান্টিয়ার প্রতিনিয়ত ম্যাপ উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন।

গুগল লোকাল গাইডসের ‘গাইডিং স্টার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন সাত বাংলাদেশি। বিশ্বের সব দেশের লোকাল গাইডসদের ২০২১-২২ সালের কাজের ওপর ভিত্তি করে ছয়টি ক্যাটাগরিতে মোট ৫৪ জনকে ‘গাইডিং স্টার অ্যাওয়ার্ড’ দেয়া হয়েছে। এতে তিনটি ক্যাটাগরিতে মোট সাত বাংলাদেশি এ স্বীকৃতি পেয়েছেন।

হেল্পফুল হিরো ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন কুমিল্লার মাহবুব ইসলাম, রাজশাহীর নাহিদ হোসেন ও চট্টগ্রামের সাইয়িন আজাদ। ইনক্লুসিভ ম্যাপার ক্যাটাগরিতে ঢাকার শাফিউল বাশার ও ময়মনসিংহের আব্দুল্লাহ-আল-মামুন পুরস্কার পেয়েছেন। আর কমিউনিটি বিল্ডার ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছেন ঢাকার মুকুল রহমান ও লক্ষ্মীপুরের গাজী সালাহউদ্দিন।

বাংলাদেশ সময় বুধবার রাতে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে পরিচালিত ইউটিউব প্রিমিয়ারের মাধ্যমে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে সূচনা বক্তব্য দেন গুগল লোকাল গাইড ইভেন্ট লিডার ক্রিস্টেন ব্লাজেলেক। এ সময় গুগল জিও টিমের লিডার ক্রিস ফিলিপস, গুগল ম্যাপসের ইঞ্জিনিয়ারিং টিম পরিচালক রাশমি কোলহার, সিনিয়র প্রোডাক্ট ম্যানেজার মাসা উই, প্রোডাক্ট ম্যানেজার জিন কোই ও ক্যারোলিন উপস্থিত ছিলেন।

গুগল ম্যাপের প্রোডাক্ট ডিরেক্টর মাইকেল বিজস ও অন্যরা মিলে পাঁচ ক্যাটাগরিতে পুরস্কারপ্রাপ্ত ৫৪ জনের নাম ঘোষণা করেন।

প্রাণিবিদ্যা বিষয়ে স্নাতক এবং কীটতত্ত্ব বিষয়ে স্নাতকোত্তর রাজশাহীর নাহিদ হোসেন একটি চীনা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানে প্রোডাক্ট ডিজাইনার হিসেবে কর্মরত। গুগল ম্যাপে এখন পর্যন্ত ৪০০টির বেশি জায়গা সংযুক্ত করেছেন তিনি। ছবি সংযুক্ত করেছেন পাঁচ হাজারের বেশি। এসব ছবি ১ কোটি ৮২ লাখ ৬৭ হাজার ৯৭০ বার দেখা হয়েছে।

কাজ ও স্বীকৃতির বিষয়ে জানতে চাইলে নাহিদ হোসেন বলেন, ‘প্রযুক্তির এই বিশাল জগতে বাংলা ভাষা ও বাংলাদেশকে চিনিয়ে দিতেই মূলত প্রযুক্তিভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবার সঙ্গে জড়িত হওয়া শুরু। দৈনন্দিন সমস্যায় প্রযুক্তি ব্যবহার করে সমাধান করার মধ্যে আনন্দ পাই। গুগল ম্যাপ এমনই একটা প্ল্যাটফর্ম. যেখানে একটু কন্ট্রিবিউশন অজান্তেই লাখ লাখ মানুষকে সহায়তা করে এবং এটা চলতেই থাকে।’
তিনি বলেন, ‘মানুষ যখন নিজের অর্থ, শ্রম ও সময় খরচ করে অন্যের জন্য ভালো কিছু করার চেষ্টা করে, তখন সবচেয়ে ভালোটা তার জন্যই ঘটে। প্রতিযোগিতাপূর্ণ পৃথিবীতে নতুন নতুন দক্ষতা অর্জনের জন্য স্বেচ্ছাসেবার চেয়ে ভালো কিছু আর হয় না।’
গুগলের অন্যতম পরিষেবা ‘গুগল লোকাল গাইডস’। সব বয়সী স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে এই সেবাটি। এই অনলাইন প্ল্যাটফর্মে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অসংখ্য ভলান্টিয়ার প্রতিনিয়ত ম্যাপ উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। তাদের বলা হয় ‘লোকাল গাইড’।

২০১৬ সাল থেকে স্বীকৃতিস্বরূপ সেরা লোকাল গাইডদের নিয়ে গুগল হেডকোয়ার্টারে বার্ষিক সামিট আয়োজন শুরু করে গুগল। করোনা মহামারির কারণে আয়োজনে ভাটা পড়ে। ২০২০ সাল থেকে তা বন্ধ হয়ে গেলেও ওই বছর থেকে ভার্চুয়ালি চালু করা হয় গাইডিং স্টার অ্যাওয়ার্ড।

হেল্পফুল হিরো, ইনক্লুসিভ ম্যাপার, ক্রিয়েটিভ কনট্রিবিউটর, কমিউনিটি বিল্ডার, লোকাল বিজনেস চ্যাম্পিয়ন ও সাসটেইনেবিলিটি স্টার- এই ছয় ক্যাটাগরিতে এ বছর পুরস্কার দেয়া হয়। সাসটেইনেবিলিটি স্টার ক্যাটাগরি এবারের সংযোজন।
তার আগের দুই বছর পাঁচ ক্যাটাগরিতে ৫০ জন করে মোট ১০০ জনকে এই পুরস্কার দেয়া হয়। ২০২১ সালে বাংলাদেশি হিসেবে বরিশালের কামাল হোসেন হেল্পফুল হিরো ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পান। আর কমিউনিটি বিল্ডার ক্যাটাগরিতে মালয়েশিয়াপ্রবাসী তথ্যপ্রযুক্তি উদ্যোক্তা পাভেল সারওয়ার পুরস্কার পান।
এ ছাড়া ২০২০ সালে হেল্পফুল হিরো ক্যাটাগরিতে ঢাকার সুমাইয়া চৌধুরী ও কমিউনিটি বিল্ডার ক্যাটাগরিতে ঢাকার মাহাবুব হোসেন গাইডিং স্টার অ্যাওয়ার্ড পান।