• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে আওয়ামী লীগ কর্তৃক শান্তি সমাবেশ


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১১, ২০২৩, ৩:৩৩ অপরাহ্ন / ৬৬
খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে আওয়ামী লীগ কর্তৃক শান্তি সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক,খাগড়াছড়িঃ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণাক্রমে খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী অঙ্গ সংগঠন কর্তৃক শনিবার সকাল ১০.০০ ঘটিকায় সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে।

উক্ত শান্তি সমাবেশ মহালছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি রতন কুমার শীল বক্তব্য প্রদানসহ সভাপতিত্ব করেন ও প্রধান আলোচক হিসেবে সাধারণ সম্পাদক মোঃ জসিম উদ্দিন বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ এবং প্রতিটি সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বক্তব্য রাখেন। সেই সাথে অংসাথোয়াই মারমার নেতৃত্বে মুবাছড়ি ইউনিয়ন ইউনিয়ন থেকে আগত আওয়ামী লীগ ও সকল সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

উক্ত কর্মসূচিতে পথসভা দলীয় কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে সিএমবি মাঠে র‍্যালী শেষ হয় এবং যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ রেজাউল হক মাসুদ সঞ্চালনা করেন।

৩নং ক্যায়াংঘাটে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মাহেন্দ্র চাকমা, সাধারণ সম্পাদক মোঃ শফি আলম এবং ৪নং মাইসছড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি মোঃ গিয়াস উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক চাম্পার নেতৃত্বে পৃথক পৃথক শান্তি সমাবেশ কর্মসূচী সফল করেছেন।

এ সময়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি রতন কুমার শীল বলেছেন, আওয়ামী লীগ পাল্টাপাল্টি কোনো কর্মসূচি দিচ্ছে না বলে জানিয়েছেন বিএনপি যতদিন আন্দোলন করবে, আমাদের ‘শান্তি সমাবেশ’ ততদিন অব্যাহত থাকবে। আগামী নির্বাচন পর্যন্ত আওয়ামী লীগ মাঠে থাকবে। আমরা সকলেই আন্তরিকভাবে আশা রাখছি আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৯৮নং আসনে যাকেই মনোনয়ন দেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার নেতৃত্বে আমরা মহালছড়ি উপজেলাবাসী নৌকা মার্কাকে জয়যুক্ত করে সভানেত্রী সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দেবো।

প্রধান আলোচক বলেন, বিএনপি-জামায়াত ফাঁকা মাঠ পেলে আবারও নৈরাজ্য ও সহিংসতা করতে পারে। ফলে জনগণের শান্তি এবং জানমালের নিরাপত্তায় তারা মাঠে থাকবেন। এ ধরনের শান্তি সমাবেশ নানা কর্মসূচি নির্বাচন পর্যন্ত চলবে। তবে এগুলো আমাদের এসব পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি নয় দাবি আওয়ামী লীগ নেতাদের দাবি। দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হলে আওয়ামী লীগের প্রতীক নৌকায় রায় দিতে হবে।