শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১০:৩৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শর্ত ভেঙ্গে আগেই বসেছে পশুর হাট, নগরে ভোগান্তি রাজধানীতে সাংবাদিককে গাড়ি চাপা দিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগ মধ্যনগরে শিক্ষার্থীদের অনুষ্ঠানের খাবার তুলে দিল বানভাসি মানুষের হাতে গোপালগঞ্জে চাঞ্চল্যকর ক্ষমা বিশ্বাস হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদন্ড গ্লোবাল টেলিভিশনে শুভ যাত্রা উপলক্ষে চাঁপাইনবাবগঞ্জে কেক কাটা ও দোয়া মাহফিল শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টায় ইউনূস সেন্টার——তথ্যমন্ত্রী মোহনপুরে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের “বিধি ও প্রবিধিমালার প্রয়োগ” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত রাসিকের উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচিতে শহীদ কামারুজ্জামানের জন্মবার্ষিকী উদযাপন পদ্মা সেতুর অবকাঠামো ক্ষতিসাধনের লক্ষ্যে ভিডিও ধারণকারী মাহদি হাসানকে গ্রেফতার এবার কোরবানির ঈদে চাঁপাই সম্রাটের দাম ৩০ লাখ টাকা

এবার ফুল ফোটেনি মধু নেই সুন্দরবনে : মৌয়ালরা হতাশায়

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২২ এপ্রিল, ২০২২
  • ৮৫ Time View

মোঃ শামীম হোসেন, দাকোপ,খুলনাঃ চলতি মৌসুমে অনাবৃষ্টি ও সময়মতো বনের গাছগাছালিতে ফুল না ফোটার কারণে সুন্দরবনে মধু পাচ্ছেন না মৌয়ালরা। এমন পরিস্থিতিতে লোকসানে পড়ে এ বছর দ্বিতীয়বার আর বনে যাবে না মৌয়ালদের অনেক দল।

সুন্দরবন থেকে ফিরে আসা মৌয়ালারা জানান, ১৪ দিনের পাস নিয়ে গত ১ এপ্রিল বনে মধু সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন তারা। এবার বন বিভাগের দ্বিগুণ রাজস্বসহ নৌকা ভাড়া, খাবারের জন্য নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামাল ক্রয় ও আনুষঙ্গিক মিলিয়ে দলের একজন সদস্যের খরচ হয়েছে প্রায় ১২ হাজার টাকা। কিন্তু মধু না পেয়ে প্রথম চালানেই লোকসানে পড়েছেন তারা।

এ অবস্থায় মহাজনদের কাছ থেকে নেওয়া দাদনের টাকা পরিশোধ করা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। এমনকি বনে যাওয়ার মতো হাতে টাকা না থাকায় এ বছর দ্বিতীয়বার আর বনে যাবেন না এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে মৌয়ালদের অনেক দল। উপজেলার কৈলাশগঞ্জ ইউনিয়নের বুড়িরডাবুর গ্রামের মৌয়াল ইউসুফ মুন্সী জানান, প্রথম ১৪ দিনে তার ১০ জনের দলে মধু পেয়েছে মাত্র ১৭ কেজি, যা জনপ্রতি ভাগে পেয়েছেন এক কেজি ৭০০ গ্রাম করে। গত তিন যুগে সুন্দরবনে মধুর এমন বিপর্যয় দেখেননি তারা। মৌয়াল নূর ইসলাম ফরাজী, ইব্রাহীম বেপারি, রিয়াদুল ফরাজীসহ অনেকেই জানান, আগে বনের এক থেকে দেড় কিলোমিটার এলাকা খুঁজলেই ৪-৫টি মৌচাক পাওয়া যেত। একেকটি মৌচাক থেকে ১০-১২ কেজিও মধু পেয়েছেন তারা। কিন্তু এবার মাইলে পর পর মাইল হেঁটেও মৌচাক চোখে পড়ে না। বনে ফুলের সংখ্যাও কম দেখা গেছে। দুই-একটি ছোট মৌচাক পাওয়া গেলেও তা ভেঙে দুই থেকে তিনশত গ্রাম করে মধু পাওয়া গেছে।

সুন্দরবনের স্টেশন কর্মকর্তা জানান, এ বছর ১-১৫ এপ্রিল স্টেশন থেকে ৭৬টি দলকে মধু আহরণের পারমিট দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১৮টি দল তাদের পাস জমা দিয়েছে। কিছু কিছু দল ফিরে এলেও অনেকেই বনে রয়েছে। তার মতে, গত দুই বছর সুন্দরবন অঞ্চলে এমন সময় পর্যাপ্ত বৃষ্টি হচ্ছে না। এ কারণে বনের গাছগাছালিতে ফুল এলেও তা শুকিয়ে ঝরে যায়। ফলে মৌমাছি ও কীটপতঙ্গের খাদ্যসংকট সৃষ্টি হয়। তাই মধু না পেয়ে মৌমাছিও আসে না। গত বছরও প্রথম দিকে এমন পরিস্থিতি হয়েছিল। কিন্তু শেষের দিকে ভালোই মধু পাওয়া গেছে। সামনে বৃষ্টিপাত হলে বনে ফুল এবং মধু পাওয়া যাবে বলে আশা করেন তিনি।

বন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জ কর্মকর্তা (এসিএফ) মো. শহিদুল ইসলাম জানান, পূর্ব সুন্দরবনে এ বছর ১০৫০ কুইন্টাল মধু এবং ৩৫০ কুইন্টাল মোম আহরণের লক্ষ্য নিয়ে শরণখোলা, চাঁদপাই, ঢাংমারী ও জিউধরা স্টেশন থেকে ১২৭টি পাস (পারমিট) দেওয়া হয়েছে। ৩০ জুন পর্যন্ত মধু আহরণ চলবে। প্রথম চালানে মধু কম হলেও মৌসুম শেষ না হওয়া পর্যন্ত কম বা বেশির হিসাব এখনই নির্ধারণ করা যাবে না।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 ajkerbd24.com
Design & Development By: Atozithost
Tuhin