• ঢাকা
  • বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০১ পূর্বাহ্ন

ইট পাথরের শহরে অক্সিজেনের টুকরা


প্রকাশের সময় : জানুয়ারী ১০, ২০২২, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন / ২৭৭
ইট পাথরের শহরে অক্সিজেনের টুকরা

নিপা আক্তার : মানুষ যতই আধুনিক হচ্ছে ততই সবুজের পরিমান হ্রাস পাচ্ছে। গ্রাম মানে চারদিকে সবুজের সমারোহ। যেদিকে তাকানো যায় সেই দিকেই সবুজ গাছ গাছালিতে ভরা কিন্তু তার উল্টো চিত্র দেখবেন শহরে যেদিকে তাকাবেন ইট পাথরের দালান। সবুজের পরিমান নেই বললেই চলে।
তার মাঝে ও দেখা যায় কারো কারো বারান্দায় বা ছাদে এক টুকরো অক্সিজেনের আবাদ। শখের বসে অনেকে তার প্রিয় ব্যালকনিতে বা ছোট্ট বারান্দায় গাছ লাগাচ্ছে নানা ধরনের ফুল বা ইনডোরের কিছু গাছ। সকালে ঘুম থেকে উঠে বারান্দায় দাঁড়িয়ে যখন প্রিয় গাছগুলোর দিকে চোখ যাবে মনটা এমনিতেই ভালো হয়ে যাবে।
আবার কেউ কেউ ছাদে নানা ধরনের সবজি, ফল,ফুল এর গাছ লাগাচ্ছে । অনেকে চাকরি করার পাশাপাশি সময় বের করে যত্ন করছে সবুজের সমারোহ কে এতে একদিকে তাদের সখ পূরনের সাথে ফল বা সবজি ও কেনা থেকে বেচে যাচ্ছে।ফরমালিন মুক্ত ফলে পাচ্ছে । বড় উপকার করছে অক্সিজেন তৈরিতে সাহায্য করছে তারা।

অনেকের ভালো সময় কাটে তাদের বাগান পরিচর্যা কাজের সময়টা । ছোট থেকে বড়ো সবার উচিত গাছ লাগানোর অভ্যাস গড়ে তোলা । আমরা বড়োরা যদি গাছ লাগানোর কথা বলি বা লাগিয়ে দেখায়ই তাহলে আগামীর ভবিষ্যতে শিশুরা গাছ লাগানোর অভ্যাস তাদের গড়ে উঠবে তাদের মধ্যে।

গাছ শুধু লাগালেই হবে না এদের কিভাবে পরিচর্যা করতে হবে তাও জানতে হবে। এই ইট পাথরের কঠিন শহরে প্রায় ফ্ল্যাটের ব্যালকনি বা ছাদে দেখা যায় যেন ছোট ছোট অক্সিজেনের কারখানা।