শিরোনাম

মুক্তামণির ডান হাতটা অক্ষত রেখেই যাতে অস্ত্রোপচার করা যায় চিকিৎসকেরা প্রথমে সে চেষ্টাই করবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের চিকিৎসকরা আশাবাদী যে, শিশু মুক্তামনি ভালো হবেই।রক্তনালির বিরল রোগে আক্রান্ত মুক্তামণির ডান হাতটা অক্ষত রেখেই যাতে অস্ত্রোপচার করা সম্ভব হয়, চিকিৎসকেরা প্রথমে সে চেষ্টা করবেন। তবে তা সম্ভব না হলে হাত কেটে হলেও অস্ত্রোপচার করতে হবে। কেননা, অস্ত্রোপচার না করলে তার মৃত্যুঝুঁকি আছে। মুক্তামণির বাবা-মা মেয়ের হাত কেটে ফেলতে হলেও অস্ত্রোপচারে সম্মতি দিয়েছেন। তাঁদের কাছে মেয়ের হাতের চেয়ে জীবন আগে।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানানো হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, মুক্তামণির বায়োপসি করা হবে আগামী শনিবার। বায়োপসি (একধরনের অস্ত্রোপচার) করার সময় হাত থেকে ঠিক কতটুকু জায়গা কাটতে হবে, তা বায়োপসি করার সময় সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আগে থেকে কিছুই বলা সম্ভব না। বায়োপসির ফলাফল থেকে জানা যেতে পারে তার বিরল রোগের নাম।muktamoni

সাতক্ষীরায় জন্মের দেড় বছর পর থেকে মুক্তামণির ডান হাতের সমস্যার শুরু। প্রথমে হাতে টিউমারের মতো হয়। ছয় বছর বয়স পর্যন্ত টিউমারটি তেমন বড় হয়নি। কিন্তু পরে মুক্তামণির ডান হাতটি ফুলে অনেকটা কোলবালিশের মতো হয়ে যায়। মুক্তামণি বিছানাবন্দী হয়ে পড়ে। এখন তার বয়স ১০ বা ১২ বছর। মুক্তামণির রোগ নিয়ে সম্প্রতি গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়। ব্যাপক আলোচনা চলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। গত ১১ জুলাই মুক্তামণিকে ভর্তি করা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তামণির চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন। বিনা মূল্যে তার চিকিৎসা চলছে।

সংবাদ সম্মেলনে বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের প্রধান সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তামণির চিকিৎসা সিঙ্গাপুরের জেনারেল হাসপাতালে করা সম্ভব কি না, তা দেখার নির্দেশ দেন। তারপর বার্ন ইউনিটের পক্ষ থেকে সিঙ্গাপুরের হাসপাতালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মুক্তামণিকে সেখানকার চিকিৎসকদের দেখানো হয়। তার সব প্রতিবেদন পাঠানো হয়। তবে সেখান থেকে মুক্তামণির অবস্থাকে ‘ডিফিকাল্ট কেস’ বলে ই-মেইলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। তাঁরা বলেছেন, মুক্তামণির হাত কেটে ফেলতে হতে পারে। আর এই মুহূর্তে সিঙ্গাপুরে মুক্তামণির অস্ত্রোপচার করা সম্ভব হবে না, বিভিন্ন ডায়াগনোসিস করে দেখতে পারেন। প্রধানমন্ত্রীকে এ কথা জানানোর পর তিনি বার্ন ইউনিটেই মুক্তামণির চিকিৎসা করানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

সামন্ত লাল সেন বলেন, ‘ঢাকা মেডিকেলের চিকিৎসকেরা কয়েক দিন আগেই জোড়া লাগানো যমজ শিশুকে অস্ত্রোপচার করে আলাদা করতে সফল হয়েছেন। দেশবাসী দোয়া করবেন, আর আমরা চেষ্টা করব। আমরা অগ্রাধিকার দেব, তার হাতটি যাতে রক্ষা করতে পারি।’

বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক আবুল কালাম বলেন, এই ধরনের বিরল রোগের চিকিৎসার অনেকগুলো স্তর থাকে। মুক্তামণি প্রথম যখন আসে, তখন তার হাত থেকে বের হওয়া গন্ধে কেউ টিকতে পারত না। এখন কিন্তু আর তার হাত থেকে গন্ধ বের হয় না। তার একটা অস্ত্রোপচার করে চিকিৎসা শেষ করা যাবে না। কমপক্ষে ৬ থেকে ৭টি অস্ত্রোপচার লাগবে। তার রক্তকণিকা কম থাকায় ঝুঁকি তো আছেই।mukta

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক চিকিৎসক জুলফিকার লেনিন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী মুক্তামণির চিকিৎসা চলছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকদের সক্ষমতা বেড়েছে। আশা করা হচ্ছে, সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকেরা না পারলেও এখনে চিকিৎসকেরা সফল হবেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, সিঙ্গাপুরে গিয়ে যেহেতু লাভ হবে না, তাই মুক্তামণির চিকিৎসা এখানেই হবে। মুক্তামণির বাবা-মায়ের সঙ্গে কথা বলে সার্বিক পরিস্থিতি জানানো হয়েছে। তাঁরা হাত যদি কেটে ফেলতেও হয়, তাতেও অস্ত্রোপচার করতে রাজি আছেন। তবে এখানকার চিকিৎসকেরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন, যাতে হাতটি রক্ষা করা যায়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মুক্তামণির মা আসমা খাতুন বলেন, ‘এখানকার চিকিৎসায় আমরা খুব সন্তুষ্ট। বাড়িতে থাকলে মেয়ে এত ভালো থাকত না। আমি আমার মেয়ের জন্য সবার কাছে দোয়া চাই।’বায়োপসি হবে, তা মুক্তামণি জানে। তাঁর ভাষায়, এটা না করে তো আর কোনো উপায় নেই। তাই সে ভয় পাচ্ছে না।

সাতক্ষীরার কামারবাইশালের মুদি দোকানি ইব্রাহিম হোসেনের দুই মেয়ে হীরামণি ও মুক্তামণি। তারা যমজ দুই বোন। হীরামণি সম্পূর্ণ সুস্থ থাকলেও মুক্তামণি বিরল রোগে আক্রান্ত। হীরামণি এখন চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ছে। মুক্তামণি স্কুল থেকে দ্বিতীয় শ্রেণির বই এনেছিল, কিন্তু তার আর স্কুলে যাওয়া হয়নি। ##

Be Sociable, Share!
বিভাগ: স্বাস্থ্য সেবার খবর

এখনো কোন মন্তব্য করা হয়নি.

মন্তব্য করুন

*