শিরোনাম

৭০ বছরের বৃদ্ধের শিশুকে ধর্ষণ

indexনিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীতে দু’টি এলাকায় দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভিকটিমদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস (ওসিসি) সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। তবে ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত রোববার দারুস সালাম এলাকায় এক স্কুলছাত্রীকে (১৪) নির্যাতনের পর ধর্ষণ করে ওই এলাকার বাসিন্দা সোহান। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা গতকাল দারুস সালাম থানায় মামলা করেছেন। ছাত্রীর বাবা জানান, গত রোববার একই এলাকার সোহান নামে এক যুবক তার মেয়েকে বালুর মাঠ এলাকায় ডেকে নেয়। সেখানে সোহানের চার বন্ধু তাকে মারধর করে জোরপূর্বক একটি ভবনের দ্বিতীয় তলায় নিয়ে ধর্ষণ করে।

পরদিন সোমবার স্থানীয়দের জানিয়ে তিনি থানায় যান। পরে পুলিশের পরামর্শ অনুযায়ী মেয়েকে প্রথমে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। হাসপাতাল সূত্র জানায়, মেয়েটি হাসপাতালের গাইনি বিভাগের ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে। সেখান থেকে ওসিসিতে পাঠানো হবে। দারুস সালাম থানার ওসি সেলিমুজ্জামান বলেন, মেয়েটিকে ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ দিকে ৬-৭ মাস আগে খিলগাঁও সিপাহিবাগ এলাকায় প্রথম শ্রেণীতে পড়–য়া ৯ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে উঠেছে ৭০ বছরের এক বৃদ্ধের বিরুদ্ধে। সম্প্রতি ওই ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়লে গতকাল তাকে ঢামেক হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়। শিশুটির বাবা জানান, ৩ বছর আগে তারা সিপাহিবাগ চৌধুরী বাড়ির মোড়ে একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। ওই বাড়িতে হারুন মিয়া নামে এক সবজি বিক্রেতা থাকেন। হারুনকে মেয়েটি নানা বলে ডাকত। ৬-৭ মাস আগে তারা ঢাকার বাইরে যান। সে সময় মেয়েকে হারুনের কাছে রেখে যান। হারুন তখন মেয়েকে ধর্ষণ করে।

বিষয়টি তখন জানাজানি হয়নি। বেশ কয়েকদিন ধরে মেয়ের পেটে ব্যথা উঠে। চিকিৎসক দেখানোর পরও ভালো হচ্ছিল না। একপর্যায়ে মেয়ে ৬-৭ মাস আগে ধর্ষণের বিষয়টি পরিবারকে জানায়। বিষয়টি জেনে গত সোমবার তাকে মুগদা হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখান থেকে গতকাল দুপুরে তাকে ঢামেকে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকেরা বলছেন, পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

Be Sociable, Share!
বিভাগ: সারা বাংলার খবর

এখনো কোন মন্তব্য করা হয়নি.

মন্তব্য করুন

*