শিরোনাম

অটোরিকশা সামলাতে পুলিশের পিটুনি

a4908f67ca273f6632b60078b45b7cf3-16মদনপুর-ভুলতা-জয়দেবপুর (এশিয়ান হাইওয়ে নামে পরিচিত) মহাসড়কের নারায়ণগঞ্জ প্রান্তে গতকাল শনিবার সিএনজিচালিত অটোরিকশা বন্ধে অভিযানে নামে কাঁচপুর হাইওয়ে থানার পুলিশ। এ সময় তারা অটোরিকশার পাঁচ থেকে ছয়জন চালককে পিটিয়ে জখম করে এবং আট থেকে দশটি অটোরিকশা ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ উঠেছে।
একটি নছিমন মহাসড়কের পাশে খাদে ফেলে দেওয়া হয়  l ছবি: সাজিদ হোসেনপুলিশ ও কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, গতকাল বেলা একটার দিকে কাঁচপুর হাইওয়ে থানার পুলিশের একটি দল মদনপুরের নাজিমউদ্দিন ভূঁইয়া মহাবিদ্যালয়ের সামনে অভিযান শুরু করে। তারা ওই পথ দিয়ে অটোরিকশার চলাচল বন্ধ করে দেয়।
সরকার সম্প্রতি দেশের ২২টি মহাসড়কে তিন চাকার যান চলাচল নিষিদ্ধ করে।
পিটুনির শিকার অটোরিকশাচালক মো. রাজু অভিযোগ করেন, পুলিশ হঠাৎ করে ওই সড়কে অটোরিকশার চলাচল বন্ধ করে দিয়ে চালকদের লাঠিপেটা শুরু করে। এ ছাড়া অটোরিকশা ভাঙচুর ও চালকদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কেড়ে নিতে থাকে। তিনি নিজেও পুলিশের লাঠিপেটার শিকার হন। পুলিশ তাঁর অটোরিকশার সামনের কাচ ভেঙে ফেলে এবং কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়। ভাঙা কাচের টুকরা তাঁর হাতে বিদ্ধ হয়। তিনি প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। রাজুর দাবি, পাঁচ থেকে ছয়জন চালককে লাঠিপেটা করা হয়েছে। ভাঙচুর করা হয়েছে অন্তত ১০টি রিকশা। তিনি দাবি করেন, ওই সড়কে অটোরিকশা চলাচল নিষিদ্ধের বিষয়ে তাঁরা কিছু জানেন না।
প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক ব্যক্তি জানান, পুলিশ একটি তিন চাকার যান মহাসড়কের পাশে ফেলে দেয়।
এ ব্যাপারে কাঁচপুর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুর রহমান বলেন, অটোরিকশা চলাচল নিষিদ্ধ হওয়া মহাসড়কগুলোর মধ্যে এই মহাসড়কটিও রয়েছে। ওসির অভিযোগ, অটোরিকশার চালকদের একাধিকবার নিষেধ করা সত্ত্বেও তাঁরা মানেননি। থামার সংকেত দিলেও তা অমান্য করে কর্তব্যরত পুলিশের গায়ের ওপর অটোরিকশা তুলে দেন। ওসির দাবি, যাঁরা সংকেত না মেনে পুলিশের গায়ে অটোরিকশা তুলে দিয়েছেন, তাঁদের ব্যাপারেই আইনের প্রয়োগ করা হয়েছে। অটোরিকশার কাগজপত্র কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, কাগজপত্র নিয়ে তা খতিয়ে দেখে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

Be Sociable, Share!
বিভাগ: সর্বশেষ খবর, সারা বাংলার খবর

এখনো কোন মন্তব্য করা হয়নি.

মন্তব্য করুন

*