শিরোনাম

শ্রমিক নিহতের গুজবে অবরোধ, বাসে আগুন

decd25e31b300ab34d78fb435fab5002-5a55ff2983c60গাজীপুর সংবাদদাতা: বাসচাপায় আহত এক নারী শ্রমিকের মৃত্যুর গুজবে আজ বুধবার গাজীপুরে সড়ক অবরোধ, যানবাহন ভাঙচুর ও বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

আজ সকালে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নাওভাঙা এলাকায় স্থানীয় ফ্ল্যামিঙ্গো ফ্যাশনস লিমিটেডের কর্মী সুমি আক্তার (২০) বাসচাপায় আহত হন। পরে দুপুরে সুমির মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে পড়লে কারখানার অন্য শ্রমিকেরা দুই ঘণ্টা ধরে ঢাকা-শিমুলতলী সড়ক অবরোধ করে রাখেন। এ সময় তাঁরা বাসে আগুন দেন এবং কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করলে বেলা আড়াইটার দিকে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

কারখানার শ্রমিক ও পুলিশ জানায়, আজ সকাল পৌনে আটটার দিকে কারখানার সামনে রাস্তা পার হওয়ার সময় শিমুলতলী থেকে কালিয়াকৈরগামী কেপি পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস সুমি আক্তারকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে গুরুতর আহত হন সুমি। তিনি কারখানার ফিনিশিং সেকশনের কর্মী। ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে সহকর্মীরা তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। দুপুরে খাবারের বিরতির সময় কারখানায় সুমি মারা যাওয়ার গুজব ছড়িয়ে পড়ে। উত্তেজিত শ্রমিকেরা সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। এ সময় তাঁরা শিমুলতলী সড়কে অবস্থান নিয়ে কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করেন এবং একটি বাসে আগুন দেন। এতে সড়কে যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত হয়।

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভান। জয়দেবপুর থানা-পুলিশ বেলা আড়াইটার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার পর যানবাহন চলাচল শুরু হয়।

ফ্ল্যামিঙ্গো ফ্যাশনস লিমিটেডের ব্যবস্থাপক (প্রশাসন) মেজবাহ উদ্দিন জানান, বাসচাপায় সুমি আহত হয়েছেন। মারা যাননি। তাঁকে ঢাকায় জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (পঙ্গু হাসপাতাল) পাঠানো হয়েছে। এদিকে কে বা কারা সুমির মৃত্যুর খবর কারখানায় ছড়িয়ে দিলে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা বাসে অগ্নিসংযোগ ও গাড়ি ভাঙচুর করেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে আজ কারখানায় ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়।

জয়দেবপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আবদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বেলা আড়াইটার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে এবং যানবাহন চলাচল শুরু হয়। ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Be Sociable, Share!
বিভাগ: জেলার খবর

এখনো কোন মন্তব্য করা হয়নি.

মন্তব্য করুন

*