শিরোনাম

নিজেকে রাঙাতে পার্লারে নারীরা

2016_07_04_16_44_00_vgBshxwLA8hwDTKskTaOHocu1UmeAK_originalজেলা সংবাদদাতা: ঈদে নিজেকে নতুন করে রাঙাতে গাইবান্ধার কিশোরীরা ছুটছে পার্লারগুলোতে। সংসারের কাজের ফাঁকে ঈদের আনন্দের সাথে নিজের মনকে রাঙাতে বসে নেই গৃহিণীরাও। একটু ফুসরত পেলেই তারাও যাচ্ছে পার্লারে। এ কারণে দম ফেলার সময় নেই পার্লার কর্মীদের।

গাইবান্ধা জেলা শহরের পার্লারপাড়া সালিমার সুপার মার্কেট, তরফদার ম্যানসন, পার্ক ভিউ ছাড়াও প্রায় শতাধিক  পার্লার রয়েছে বিভিন্ন এলাকায়। তবে শহরের নাম করা বিপণীগুলোতে অবস্থিত একাধিক পার্লারে নারীদের ভিড় লক্ষ্যণীয়।

অপরদিকে গাইবান্ধা শহরের পাড়ায় পাড়ায় এমনকি গ্রামের হাট বাজারের পার্লারগুলোতে বিশাল আকারে মনকাড়া সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে। গ্রাম থেকে শহরের পার্লারে যারা যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন না তারা এখানেই কাজ করছেন।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলার চণ্ডিপুর থেকে ফারজানা রহমান গাইবান্ধা শহরে এসেছেন ঈদের কেনাকাটা করতে। তার সাথে ছোট বোন মনিরা আর ভাবি সালমাও এসেছেন। কেনাকাটার পর অঙ্গনা বিউটি পার্লারে সিরিয়াল দিয়ে বসে আছেন। কিন্তু ভিড়ের কারণে সিরিয়ালের অনেক পিছনে রয়েছেন। জিজ্ঞেস করতেই মনিরা জানান, এখানে অনেক ভিড় তাই হয়তো ফিরে যেতে হবে। শহরের পার্লারে সাজা হলো না বলে মন খারাপ ফারজানা রহমানের।

শহরের মধ্যপাড়ার বাসিন্দা আব্দুল কাদেরের কিশোরী মেয়ে নয়ন জানায়, সে কয়েকদিন এসে ফিরে গেছে। তাই আজ সকালে বাড়ি থেকে বের হয়েই সোজা বান্ধবীদের নিয়ে চলে আসে মিষ্টি মউ পার্লারে।

নতুন বিয়ে হয়েছে তানজিনা ইসলামের। তিনি শ্বশুর বাড়ি থেকে গতকাল এসেছেন মাস্টারপাড়ার বাবার বাড়িতে। আজ পার্লারে এসেছেন নিজেকে নতুন ভাবে সাজিয়ে তুলতে। সুন্দর করে চুল কেটে কালার করতে চান। ঈদের দিনও সাজতে চান এখান থেকে।

ঈদ উপলক্ষে নিজেকে সাজাতে মিষ্টি মউ পার্লারে মেয়েরা ভ্রুপ্লাক, ফেসিয়ার, মেনি কিউর, পেডি কিউর, রিবন্ডিং, হেয়ার কালার, হেয়ার কাট, আপার লিভসহ নানা আইটেম প্রয়োগ করছেন। দাম একটু বেশি হলেও কাজ করাতে পেরে মেয়েরা অনেক খুশি।

মিষ্টি মউ পার্লারের মালিক সাহানা পারভীন জানান, অন্যান্য সময়ের চেয়ে এখন কাজের চাপ বেশি। দিনরাত ভিড় সামলাতে হয়। ঈদ উপলক্ষে বাড়তি টাকা নেয়া হচ্ছে। তবে তা খুব বেশি না।

একই চিত্র গাইবান্ধা শহরের প্রতিটি পার্লারে। খরচ একটু বেশি হলেও তাতে ক্ষুব্ধ নন এখানকার নারীরা।

Be Sociable, Share!
বিভাগ: জেলার খবর, নারী অঙ্গন

এখনো কোন মন্তব্য করা হয়নি.

মন্তব্য করুন

*