শিরোনাম

লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাত ময়দান

9c734cbf7756909cf8367783ccb2f23d-1-1-SAUDI-RELIGION-ISLAM-HAJJ-PILGRIMS-064045আজকের বিডি রিপোর্ট : বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রায় ১৮ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমান পাপমুক্তি ও আত্মশুদ্ধির আকুল বাসনা নিয়ে গতকাল রোববার পবিত্র হজ পালন করেছেন। ইসলামের অন্যতম প্রধান স্তম্ভ হজ।

গতকাল সূর্যোদয়ের পর লাখ লাখ হাজি মিনা থেকে রওনা হন আরাফাতের ময়দানের দিকে। ট্রেনে, বাসে ও হেঁটে হাজিরা আরাফাতের ময়দানে হাজির হন। লাখো কণ্ঠে ছিল একটাই রব, ‘লাব্বাইকা আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হাম্‌দা ওয়ান্‌নি’মাতা লাকা ওয়াল্‌মুল্‌ক্, লা শারিকা লাকা।’ (আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো শরিক নেই, সব প্রশংসা ও নিয়ামত শুধু তোমারই, সব সাম্রাজ্যও তোমার।)

হজের তিন ফরজের মধ্যে ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। হজ ভিসা নিয়ে যাঁরা সৌদি আরবে পৌঁছেছেন তাঁরা তো যাবেনই। তাঁদের মধ্যে যাঁরা অসুস্থতার জন্য হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তাঁদেরও অ্যাম্বুলেন্সে করে আরাফাতের ময়দানে স্বল্প সময়ের জন্য আনা হয়। কারণ, আরাফাতের ময়দানে উপস্থিত হওয়া হজের অন্যতম ফরজ।

 ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে উপস্থিত না হলে হজ হবে না। তালবিয়া পাঠ করে মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে নিজের উপস্থিতি জানান দিয়ে পাপমুক্তির আকুল বাসনায় লাখ লাখ ধর্মপ্রাণ মুসলমান (হাজি) মিনা থেকে আরাফাতের ময়দানে সমবেত হন। কেউ পাহাড়ের কাছে, কেউ সুবিধাজনক জায়গায় বসে ইবাদত করেন। কেউ কেউ যান জাবালে রহমতের কাছে। কেউ কেউ যান মসজিদে নামিরায় হজের খুতবা শুনতে।

এশার নামাজের পর মিনায় হাজিদের জানিয়ে দেওয়া হয়, আরাফাতে যাওয়ার গাড়িগুলো আসতে শুরু করেছে। পরে ভিড় বাড়তে শুরু করলে সমস্যা হবে।
এখনই আরাফাতে রওনা দেওয়া উচিত। তাই অনেকেই কোরআন শরিফ, হাজি ম্যাট এবং কিছু ব্যবহার্য জিনিস নিয়ে আরাফাতের ময়দানের উদ্দেশে রওনা দেন। আরাফাতের ময়দানে হাজার হাজার তাঁবু টানানো আছে। তবে এগুলো অস্থায়ী। কিছুদূর পরপর টয়লেট ও অজুর ব্যবস্থা রয়েছে।

আরাফাতের ময়দানে হাজিরা তাঁবুর ভেতরে ফজরের নামাজ পড়েন। তাঁবুর মধ্যেই নামাজ, বন্দেগি, দোয়া-দরুদ ও কোরআন শরিফ পড়েন। প্রতিটি তাঁবুর সামনেই খাওয়ার পানির পাত্র রয়েছে। কিছুদূর পরপর একসঙ্গে বেশ কয়েকটি টয়লেট। পুরুষ ও নারীদের টয়লেট আলাদা। টয়লেটগুলোর দুই প্রান্তে অজু করার জন্য কয়েকটি করে ট্যাপ আছে। অনেকেই ট্যাপগুলো থেকে পানি নিয়ে গোসল সেরেছেন।

আরাফাত ময়দান মিনা থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ৯ জিলহজ দুপুরের পর থেকে ১০ জিলহজ সুবহে সাদিক পর্যন্ত এক মুহূর্তের জন্য হলেও আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করা হজের ফরজ। এই ময়দানে অবস্থিত মসজিদটির নাম মসজিদে নামিরাহ। এই মসজিদের জামাতে অংশগ্রহণকারী হজযাত্রীরা জোহরের ওয়াক্তে এক আজান ও দুই ইকামতের সঙ্গে একই সময়ে পরপর জোহর ও আসরের নামাজ আদায় করে থাকেন। নামাজের আগে ইমাম সাহেব খুতবা দেন।

৩৫ বছরের মধ্যে এবারই প্রথম সৌদি আরবের গ্র্যান্ড মুফতি আবদুল আজিজ-আল শেখ আরাফাতের ময়দানে খুতবা দেননি। গত শনিবারই সৌদি কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত জানিয়েছিল। স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো বলেছে, স্বাস্থ্যগত কারণে এবার তিনি খুতবায় বক্তব্য দেননি। তবে উপস্থিত ছিলেন। এবারের আরাফাতের ময়দানে খুতবা দেন মক্কার মসজিদুল হারামের ইমাম আবদুর রহমান আল-সুদাইস।

বিবিসি জানিয়েছে, হজ ব্যবস্থাপনা নিয়ে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যকার বাদানুবাদের মধ্যে সম্প্রতি গ্র্যান্ড ‘ইরানিরা মুসলমান নয়’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। এরই মধ্যে সৌদি কর্তৃপক্ষ এবারের হজ ফারসি ভাষায় সরাসরি সম্প্রচারের ব্যবস্থা করেছে।

Be Sociable, Share!
বিভাগ: ইসলাম ও জীবন, প্রধান খবর - ২

এখনো কোন মন্তব্য করা হয়নি.

মন্তব্য করুন

*